ঢাকা ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ৯ মাঘ ১৪২৮

আদি বুড়িগঙ্গা উদ্ধারে এবার অভিযানে জেলা প্রশাসন

হাবিব রহমান, একাত্তর
প্রকাশ: ২৫ অক্টোবর ২০২১ ১৯:০৩:৫৮ আপডেট: ২৫ অক্টোবর ২০২১ ২১:৪৯:৫৩
আদি বুড়িগঙ্গা উদ্ধারে এবার অভিযানে জেলা প্রশাসন

আদি বুড়িগঙ্গা নদী দখল করে গড়ে ওঠা ৭৬টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান শুরু করেছে জেলা প্রশাসনও। হাইকোর্টের নির্দেশে চলছে এই অভিযান। 

তবে এই তালিকার বাইরেও আরও বহু অবৈধ স্থাপনা আছে, যার তালিকা নেই। এলাকাবাসী বলছে ভূমি অফিসই তাদের জমির বৈধতা দিয়েছে। 

হাজারীবাগের কালুনগর। একদিকে কুচকুচে কালো পানি। অন্যদিকে মাটি ফেলে ভরাট করে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে আদি বুড়িগঙ্গার মুখ। কালুনগর থেকে মাহাদীনগর পর্যন্ত পুরো নদীই এখন ভরাট। গড়ে উঠেছে নানা রকম অবৈধ স্থাপনা। 

স্যাটেলাইটের বিশ্লেষণ থেকে পরিস্কার বুঝা যায়, ১৯৩৪ সালেও ঢাকার বুকে পরিস্কার দৃশ্যমাণ ছিলো আদি বুড়িগঙ্গা নদী। তখনও পানির প্রবাহ ছিলো অবারিত।

কিন্তু শহরায়নের গ্রাসে আর ভূমিদস্যুদের লালসায় সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দখল আর দুষণে আদি বুড়িগঙ্গা তার অস্তিত্ব হারায়। 

আরও পড়ুন: অতিবৃষ্টিতে দিশেহারা দিনাজপুরের আগাম আলু চাষিরা

মানচিত্র থেকে নদী নিশ্চিহ্ন হবার পেছনে ভূমি অফিসের দায়ও কম নয়। তারাই অবৈধ দখলকে দিয়েছে সরকারি বৈধতা। এলাকাবাসীও স্বীকার করেন। ৯০ সালেও এখানে পানির প্রবাহ ছিলো। 

হাইকোর্টের আদেশে ৭৬টি অবৈধ স্থাপনার বিরুদ্ধে চলছে বিআইডাব্লিউটিএ এবং জেলা প্রশাসনের অভিযান। পুরো এলাকা নতুন করে খনন করে পানি ফেরাতে চায় কর্তৃপক্ষ। 

পরিবেশবিদরা বলছেন, হাইকোর্টের আদেশ বাস্তবায়ন করতে হলে আগে ঠিক করতে হবে নদীর সীমানা। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে নৌযান চলাচলও স্বাভাবিক করা হবে, বলছে কর্তৃপক্ষ। 



একাত্তর/আরএইচ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন