ঢাকা ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

নির্বাসিত জীবনে এক আফগান নারীর কথা

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৫ অক্টোবর ২০২১ ২২:০৯:০৬ আপডেট: ২৫ অক্টোবর ২০২১ ২২:১০:৪৮
নির্বাসিত জীবনে এক আফগান নারীর কথা

তালেবানগোষ্ঠী আফগানিস্তান দখলের পর দেশ ছেড়ে পালানো এক নারী আইনজীবী বিবি চমন হাফিজি। ক্ষমতার পটপরিবর্তনের সময় চমন জানতে পেরেছিলেন সরকারকে সহযোগিতা করা নারীদের ধরপাকড় শুরু করেছে তালেবান। তালেবানদের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রথমে কাজের যাবতীয় নথিপত্র জ্বালিয়ে ও পরবর্তীকালে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান চমন। 

ওযারা কাউন্টার নারকোটিক্স জাস্টিস সেন্টারের কাজ করার সময় আরও বহু নারীর মতো হাফিজিও মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে যেসব অপরাধীর কারাদণ্ড নিশ্চিত করেছিল, তালেবানরা আফফিস্তান দখলের পর তাদেরকে কারাগার থেকে মুক্ত করে দিয়েছে। 
Afghan lawyer Bibi Chaman Hafizi and her children Arsheya and Diana are seen in the living room of their apartment in Athens, Greece, October 15, 2021. Picture taken October 15, 2021. REUTERS/Alkis Konstantinidis

তালেবানরা ক্ষমতা দখলের পর হাফিজি তার সাংবাদিক স্বামী এবং দুই সন্তান নিয়ে টানা সাত সপ্তাহ ধরে পলাতক ছিলেন। আরও ২৫ জন নারী বিচারক, আইনজীবী এবং তাদের পরিবারের সাথে গ্রীসে পুনর্বাসিত হওয়ার আগ পর্যন্ত আরও চারটি শহরে আশ্রিত অবস্থায় কাটাতে হয়েছে তাদের ।

বর্তমানে এথেন্সে আশ্রয় নিয়েছেন হাফিজি। সেখান থেকে তিনি জানান, "তালেবানরা যখন ক্ষমতা দখল করে, তখন আমরা খুব ভয়ে ছিলাম। তাদের হাতে পড়লে নিশ্চিতভাবে তারা আমাদের হত্যা করতো।" 

আফগানিস্তানের নারী আইনজীবীদের পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, "যে সব নারী ন্যায়বিচারের লক্ষ্যে কাজ করেছেন, তারা এখন বাড়িতে অবরুদ্ধ।" 
Afghan judge Friba Quraishi is silhouetted in her apartment in Athens, Greece, October 15, 2021. Picture taken October 15, 2021. REUTERS/Alkis Konstantinidis

১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত চলা তালেবান শাসনের অবসান ঘটলে পরবর্তী দুই দশকে আফগান নারীরা অনেক অগ্রগতি অর্জন করে। এসময় বিচার বিভাগ, প্রচার মাধ্যম এবং রাজনীতির মতো সমস্ত কাজেই পুরুষদের সাথে সমানভাবেই নারীরা যোগ দেয়। 

চলতি বছরের আগস্টে ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকে তালেবানরা ইসলামিক আইন অনুযায়ী নারীর অধিকার রক্ষার অঙ্গীকার করে এবং রাষ্ট্রীয় সকল সাবেক কর্মীদের জন্য "সাধারণ ক্ষমা" ঘোষণা করে। 

হাফিজি বলেন, "আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বলব তালেবানদের স্বীকৃতি না দিতে। "তাদের কথার চেয়ে তাদের কাজ খুবই আলাদা।" 

যদিও কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সদস্য সুহাইল শাহীন পালিয়ে যাওয়া নারী বিচারক ও আইনজীবীদের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।   

তিনি বলেন, "এসবের অজুহাতে তারা পশ্চিমা দেশগুলোতে আবাসন নিশ্চিতের চেষ্টা করছে।" "আমরা সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছি এবং আমরা তা বাস্তবায়ন করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।" 


একাত্তর/এসএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন