ঢাকা ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

২২ দিন পর মাছ ধরতে নদীতে জেলেরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, চাঁদপুর, ভোলা ও নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমোহন
প্রকাশ: ২৬ অক্টোবর ২০২১ ১২:২৮:৪৯ আপডেট: ২৬ অক্টোবর ২০২১ ১২:৩০:২৮
২২ দিন পর মাছ ধরতে নদীতে জেলেরা

দীর্ঘ ২২ দিন বন্ধ থাকার পর আবারো মাছ ধরতে পদ্মা ও মেঘনায় ছুটে চলেছে জেলেরা। 

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) ভোর থেকেই দলবেঁধে জেলেরা জাল ও নৌকা নিয়ে নদীতে নেমে পড়ে। মাছের আশায় সরব হয়ে উঠতে শুরু করেছে নদীপাড়ের মাছের আড়তগুলোও। জালে ইলিশ আসায় খুশি জেলেরা।

একাত্তরের চাঁদপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, চাঁদপুর মাছ ঘাটে মঙ্গলবার আমদানি হয়েছে প্রায় সাত-আট মন ইলিশ। গত ৪ থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ সংরক্ষণে চাঁদপুরের পদ্মা ও মেঘনার অভয়াশ্রমে সবধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ ছিল। ২৫ অক্টোবর মধ্যরাত থেকে আবার শুরু হয়েছে মাছ ধরার কার্যক্রম। 

ভোলার লালমোহনের জেলেপাড়ায় পিনপতন নীরবতা ভেঙে যেন উৎসবের আমেজ বইছে। লালমোহন উপজেলায় ১৫ হাজার জেলে পরিবার রয়েছে। নিষেধাজ্ঞার পুরোটাই অলস সময় কেটেছে জেলেদের। তবে নিষেধাজ্ঞা শেষ হতেই আবার আড়ৎ ও মাছঘাটসহ পুরো জেলেপাড়া মুখর হয়ে উঠেছে।

জেলেরা বলেন, সরকার ২২ দিন অবরোধ দিয়েছে। সেই সময়ে আমরা নিজেদের কাজকর্ম গুছিয়ে নিয়েছি। ২২ দিন পর আমরা নদীতে নামছি। এতদিন আমরা সরকারের নিষেধাজ্ঞা মেনে নদীতে মাছ ধরতে যাইনি। আমাদের জন্য সরকার যেসব সুযোগ সুবিধা দিয়েছে সেগুলো অনেকাংশেই ঠিকমতো পেয়েছি, সরকারি সীমিত সহযোগিতায় সংসার চালাতে কিছুটা কষ্ট হলেও বড় ধরনের সমস্যা হয়নি।

আরও পড়ুন: আবারও পরীক্ষামুলক ফেরি চলাচল শুরু

আড়ৎদারদের কাছেও শোনা গেল প্রায় একই ধরনের বক্তব্য। তারা বলেন, নিষেধাজ্ঞার ২২ দিনে আমাদের কোনো ব্যবসা ছিল না। এসময় জেলেদের অনেককে অগ্রিম দাদন দিতে হয়েছে। এছাড়া কিছু করার ছিল না। জেলেরা খেয়ে বেঁচে থাকলে আমাদের ব্যবসা হবে। এখন নিষেধাজ্ঞা উঠেছে। আশা করা যায় আবার মাছের ব্যবসা জমজমাট হয়ে উঠবে। 

লালমোহন উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানায়, গত ২২ দিন ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম ছিল। এসময়ে নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা বন্ধ ছিল। স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনের নির্দেশনা এবং প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় এবারের নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি সফল হয়েছে। জেলেরা যথাযথভাবে সরকারের সহযোগিতা পেয়েছে। বিধিনিষেধ কাটিয়ে ২৬ অক্টোবর থেকে পুনরায় নদীতে মাছ ধরা শুরু হয়েছে। দীর্ঘ তিন সপ্তাহ মাছ ধরা বন্ধ থাকায় জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়বে বলে আশা করা যায়। এতে জেলে পরিবারগুলোর মুখে আবারও হাসি ফুটে উঠবে।

নিষেধাজ্ঞা শেষে ভোলার মেঘনা তেতুলিয়া নদীতে মাছ শিকার শুরু করেছে জেলেরা। মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের ২২ দিন শেষে মঙ্গলবার থেকে ভোলার মেঘনা-তেতুলিয়া নদীতে ইলিশ মাছ শিকারে নেমেছে জেলেরা। ইতোমধ্যেই মেঘনা পাড়ের প্রতিটি মাছ ঘাট জমজমাট হয়ে উঠতে শুরু করেছে।  মাছঘাট ও জেলে পল্লীতে বিরাজ করছে উৎসব আমেজ।

নিষেধাজ্ঞা শেষে ভোলার ইলিশা মেঘনা নদীর তীরের মৎস্য ঘাটে আজ সকাল থেকে জেলেরা মাছ ধরে ট্রলার ও নৌকা যোগে  ঘাটে নিয়ে আসছে। মুহূর্তে হাঁকডাক দিয়ে ইলিশগুলো আড়ৎদার গন্ধের কাছে পাইকারি বিক্রি করা হচ্ছে। মাছঘাট গুলোতে চলছে মাছ বেচা কেনার হিড়িক। একটু পর পর মাছ নিয়ে ঘাটে নৌকা ভিড়াচ্ছে জেলেরা। আবার অনেকে মাছ বিক্রি করে আবার চলে যাচ্ছে মাছ ধরতে। 

জেলে ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, অভিযান মাত্র শেষ হয়েছে। এখনো তেমন আশানুরূপ ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তারা ইলিশ পাবেন বলে আশাবাদী। 


একাত্তর/এসজে

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন