ঢাকা ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

ব্যয় বহনের চাপ ভোক্তাকেও কিছু নিতে হবে: অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, একাত্তর
প্রকাশ: ১০ নভেম্বর ২০২১ ১৯:৩০:১০ আপডেট: ১০ নভেম্বর ২০২১ ২০:১১:১৫
ব্যয় বহনের চাপ ভোক্তাকেও কিছু নিতে হবে: অর্থমন্ত্রী

জ্বালানি খাতে সরকার এখনো ভর্তুকি দিলেও পুরোপুরি ব্যয় বহন করা সম্ভব নয় উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, কিছু চাপ ভোক্তারও বহন করতে হবে। 

বুধবার (১০ নভেম্বর) দুপুরে, অর্থনৈতিক বিষয় ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রীসভা কমিটির বৈঠক শেষে তিনি একথা জানান। বৈঠকটি ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়। 

মুস্তফা কামাল বলেন, তেলের দাম না বাড়ালে, উন্নয়ন ব্যাহত হবে। সরকারের আয় সংস্থানের জন্যেই জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

করোনায় মানুষ দারিদ্রসীমার নিচে চলে গেছে, চাকরি হারিয়েছে, পণ্যের দাম বেড়েছে। এর সঙ্গে ডিজেলের দাম বাড়ায় ট্রাক, বাস, লঞ্চসহ নানা জায়গায় ভাড়া বেড়েছে। 

জনগণের ওপর এই চাপ দেওয়াটা কতটা যৌক্তিক এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, পুরোটাই যৌক্তিক। সরকার কোত্থেকে টাকা পাবে? রেভিনিউ অর্জন করেই সরকারকে কাজ করতে হচ্ছে। তারপরও সরকার যতটুকু সম্ভব এটা সামঞ্জস্য করে দেয়।

তিনি বলেন, ‘ভালো দিক দেখবেন না, তেলের দাম কি আমরা বাড়িয়েছি? কোনো জাহাজে যদি করোনা আক্রান্ত কাউকে পাওয়া যায় তাহলে সেই জাহাজ কোয়ারেন্টাইনে নিয়ে যাওয়া হয়। ফলে জাহাজ চলতে পারে না, মাসের পর মাস সাগরে আটকে থাকে। সেই চার্জ শিপিং কোম্পানিকে করা হয়। এতে ব্যয় বেড়ে যায় আর সেগুলো আমরা যারা ক্রেতা তাদের ওপর এসে পড়ে। এখানে সরকারের কিছু করার থাকে না’।

আরও পড়ুন: তেলের দাম আগের অবস্থায় নিতে সিপিডির পরামর্শ

দাম না বাড়িয়ে কোনো বিকল্প ছিলো কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘যখন দাম কমে আমরা দাম কমাই, যখন বাড়ে বাড়াই। এখন কি পরিমাণ দাম বেড়েছে সেটা জানেন? আগামী মিটিংয়ে আমরা আপনাদের জানাবো গত দুই বছর কী পরিমাণ বেড়েছে আর আমরা কতটা বাড়িয়েছি। আপনারা তাহলে বুঝতে পারবেন সরকার কতটা বহন করতে পারে। যারা ভোক্তা, তাদেরকেও কিছুটা বহন করতে হবে’।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন-বিপিসি ৪৩ হাজার কোটি টাকা লাভ করেছে, কিন্তু জ্বালানি তেলের দাম কমেনি। 

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার টাকা নিয়ে কী করে? এই যে সেফটিনেট প্রকল্পগুলো আছে, এগুলো তো সরকার টাকা প্রিন্ট করে চালাচ্ছে না। সরকারকে টাকা আয় করে চালাতে হয়’। 

তিনি আরো বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী হিসেবেও আমার দায়িত্ব আছে। আমাকে রাজস্ব জোগান দিতে হয়। রাজস্ব জোগান দিতে না পারলে প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে না। আমরা পিছিয়ে যাব, আমরা পিছিয়ে যেতে চাই না। আমরা শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে কাজটি করবো’।

জ্বালানি তেলে দাম বাড়ার কারণে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা যায় কিনা, জানতে চাইলে মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আমাকে জানতে হবে মূল্য বৃদ্ধির কারণ। আমি যদি দেখি কোনো ভিত্তি ছাড়া দাম বাড়ানো হয়েছে, সেটা বিবেচনা করার অবশ্যই সুযোগ রয়েছে’।


একাত্তর/এসজে

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন