ঢাকা ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

অতিরিক্ত টাকা ছাড়া মিলছে না রাসায়নিক সার

নিজস্ব প্রতিনিধি, জয়পুরহাট
প্রকাশ: ২৩ নভেম্বর ২০২১ ১১:০৫:০৯ আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০২১ ১২:৩৫:১৫
অতিরিক্ত টাকা ছাড়া মিলছে না রাসায়নিক সার

অতিরিক্ত টাকা ছাড়া মিলছে না জয়পুরহাটে রাসায়নিক সার। প্রতি বস্তা সার এক থেকে চার’শ টাকা বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে কৃষকদের। কৌশলে তাদের বিক্রয়ের রশিদও দিচ্ছেন না সার বিক্রেতারা। 

জয়পুরহাটের বাজার গুলোতে চলছে আলু রোপণ মৌসুম। কিন্তু চাহিদা অনুযায়ী সার না পেয়ে কৃষকদের বেশি টাকা গুনতে হচ্ছে। ৫০ কেজির সারের বস্তা, টিএসপি ১১০০ টাকা সেখানে নেওয়া হচ্ছে ১৪৫০ টাকা। 

ইউরিয়া ৮০০ টাকা সেখানে নেওয়া হচ্ছে ৯৫০টাকা। পটাশ ৭৫০ টাকা সেখানে নেওয়া হচ্ছে ৯০০ টাকা। ডিএপি ৮০০ টাকা, সেখানে নেওয়া হচ্ছে ১০০০ টাকা পর্যন্ত। 

সার বিক্রির রশিদ দেওয়ার নিয়ম থাকলেও বেশি দামে বিক্রি করার কারণে, কোন কৃষকদের বিক্রয় রশিদ দেওয়া হচ্ছে না। বাধ্য হয়ে বেশি দামে সার কিনছেন কৃষকরা। এতে অনেকটা ক্ষুব্ধ তারা। 

খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, সঙ্কটের কারণে সার বেশি দাম কিনে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। ডিলাররা বিক্রি রশিদ দিচ্ছেন না, তাই কৃষকদের রশিদ দেওয়া হচ্ছে না। আর ডিলাররা বলছেন, লাইসেন্স বিহীন বিক্রেতারা বেশি দাম নিচ্ছেন। 

তবে, জেলার কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, সার সংকট নেই। বলেন, কৃষকদের কাছ থেকে সারের দাম বেশি নেওয়া হচ্ছে না, এক্ষেত্রে বাজার মনিটরিং চলছে। এদিকে, কৃষকরা দাবি জানিয়েছে, এই দুর্ভোগ কমাতে সারের বাজার মনিটরিং জোড়দার করা হোক।   

একাত্তর/ এনএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন