ঢাকা ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল তালিকায় উত্তরণে জাতিসংঘের সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, একাত্তর
প্রকাশ: ২৫ নভেম্বর ২০২১ ১০:৫৮:১৪ আপডেট: ২৫ নভেম্বর ২০২১ ১২:০০:৪১
বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল তালিকায় উত্তরণে জাতিসংঘের সুপারিশ

স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে বের হয়ে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় বাংলাদেশের প্রবেশের সুপারিশ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে অনুমোদিত হয়েছে। 

বুধবার (২৪ নভেম্বর) জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম বৈঠকের ৪০তম প্লেনারি সভায় এ ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। 

জাতিসংঘের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ, নেপাল ও লাও দেশ তিনটি উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের ক্ষেত্রে পাঁচ বছর প্রস্তুতির সময় পাবে। 

অর্থাৎ, ২০২৬ সালের ২৪ নভেম্বর বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে গণ্য হবে। সাধারণত প্রস্তুতির জন্য তিন বছর সময় দেয়া হলেও মহামারি করোনার কারণে বাড়তি সময় দেয়া হয়েছে। 

নিয়ম অনুযায়ী, একটি দেশ পরপর দুটি ত্রিবার্ষিক পর্যালোচনায় উত্তরণের মানদণ্ড পূরণে সক্ষম হলে তাকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের চূড়ান্ত সুপারিশ করা হয়। 

বাংলাদেশ এই শর্ত পূরণ করায় এ বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি) থেকে উত্তরণের চূড়ান্ত সুপারিশ পায় বাংলাদেশ। সে সুপারিশই এখন জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে গৃহীত হলো। 

২০২৬ সালের ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত এই প্রস্তুতিমূলক সময়ে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও ঋণে যেসব সুবিধা পেয়ে আসছিলো তা অব্যাহত থাকবে। 

আরও পড়ুন: সুবর্ণজয়ন্তীতে ২১ স্থানে 'পথে পথে বিজয়'

উল্লেখ্য, মাথাপিছু আয় ১২৩০ মার্কিন ডোলার, মানবসম্পদ সূচকে ৬৬ পয়েন্ট এবং অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচকে পয়েন্ট ৩৬ এর বেশি এই তিনটি শর্ত পূরণ করতে পারলেই জাতিসংঘের সিডিপি একটি দেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণের সুপারিশ করে। 

১৯৭৫ সাল থেকে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকায় থাকা বাংলাদেশ এই তিনটি শর্তই পূরণ করে ২০১৮ সালে। 

সাধারণ পরিষদে উত্তরণের প্রস্তাব গৃহীত হওয়ার পর জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা তার বক্তব্যে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরিত করার স্বপ্ন দেখেছেন। কোভিড-১৯ মহামারীর ভয়াবহতম সময়েও সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে তিনি বাংলাদেশের এই অদম্য অগ্রযাত্রায় সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, যার ফলে আজ রূপকল্প-২০২১ পূর্ণতা পেল। 

মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনকালে বাংলাদেশের জন্য এটি একটি বড় অর্জন বলেও উল্লেখ করেন তিনি। 


একাত্তর/আরএইচ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন