ঢাকা ২২ মে ২০২২, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

স্বাধীনতার ৫০ বছর

নানা সূচকে উন্নতি স্পষ্ট তবে বৈষম্য বড় প্রশ্ন

জুলিয়া আলম, একাত্তর
প্রকাশ: ১৬ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:০১:০৫ আপডেট: ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ ১৯:২৯:২০
নানা সূচকে উন্নতি স্পষ্ট তবে বৈষম্য বড় প্রশ্ন

ত্রিশ লাখ শহীদের প্রাণের বিনিময়ে স্বাধীনতা এসেছিলো এই বদ্বীপে। শুধু ভূখণ্ড নয়, বাংলাদেশের মুক্তির সংগ্রামের মহান নায়ক শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নে ছিলো সোনার বাংলা- এক সমৃদ্ধ দেশ। 

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান বলছেন, ৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতির অগ্রগতি স্পষ্ট তবে একই সাথে বৈষম্য এখন বড় প্রশ্ন হয়ে উঠেছে। 

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে একাত্তরের সাথে বিশেষ সাক্ষাৎকারে এই জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ আরো বলেন, ‘বৈষম্য শুধু রাষ্ট্র ও সমাজই নয়, দীর্ঘমেয়াদে অর্থনীতিকেও পিছিয়ে দিতে পারে।’ 

তিনি বলেন, ১৯৭২-এ যখন বঙ্গবন্ধু ক্ষমতা গ্রহণ করলেন তখন বাংলাদেশ ছিল ২৪ বছরের শোষণে বিপর্যস্ত ভঙ্গুর এক অর্থনীতি। সেখান থেকে চরম শোষিত ও যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশের ৫০ বছরের অর্থনৈতিক অগ্রগতি, মোটেও কম নয়। 

বৈদেশিক বাণিজ্য বিশ্লেষক হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সুপরিচিত এই অর্থনীতিবিদ বলেন, সত্তরের দশকে বহু বিদেশি অর্থনীতিবিদ বলেছিলেন বাংলাদেশ এমন দেশ, যেখানে উন্নয়ন সম্ভব হলে পৃথিবীর যেকোনো দেশে উন্নয়ন সম্ভব। সেই বাংলাদেশের মধ্য আয়ের দেশের তালিকায় উঠে যাওয়া একটি বড় উত্তরণ। “একই সময়ে অর্থনীতির সুষম বণ্টনের প্রশ্নটিও বড় হয়ে উঠেছে। আমাদের জাতীয় আয় বেড়েছে, মাথাপিছু আয় বেড়েছে কিন্তু বণ্টন সূচক বেড়ে শূন্য দশমিক ৪৬ থেকে শূন্য দশমিক ৪৮ হয়েছে,” বলেন ড. মোস্তাফিজ 

তার মতে, গড় মাথাপিছু আয় দিয়ে বৈষম্যকে পরিমাপ করা যায় না। করোনা মহামারি সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক অসহায়ত্ব বাড়িয়েছে। তাই নতুন অর্থনৈতিক নীতি ও সামষ্টিক ব্যবস্থাপনা নতুন করে ভাবতে হবে। মাথাপিছু গড় আয়ের আত্মতুষ্টিতে বসে থাকলে হবে না। 

আরও পড়ুন: বিজয়ের পঞ্চাশ বছরে বদলে যাওয়া বাংলাদেশ

তিনি বলেন, সমাজে বৈষম্য বেশি মানে কম আয়ের মানুষও বেশি। তাদের আয় না থাকায় চাহিদাও থাকে না, ফলে কমে যায় সরবরাহ। এভাবে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমে যেতে পারে। তাই শুধু সামাজিক ন্যায্যতা নয়, অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার স্বার্থেই অর্থনীতিতে বৈষম্য দূর করা জরুরি।



একাত্তর/এসজে

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন