ঢাকা ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১৬ মাঘ ১৪২৮

এলপিজি’র যে দাম কমেছে সেটা জানেন না অনেকে!

অনুপ অধিকারী তরুণ, একাত্তর
প্রকাশ: ০৪ জানুয়ারী ২০২২ ১৩:১৫:৪৯
এলপিজি’র যে দাম কমেছে সেটা জানেন না অনেকে!

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের নাভিশ্বাস অবস্থায়, কিছুটা স্বস্তির খবর মিললো বছরের শুরুতেই। এলপিজি’র দাম ৪ শতাংশ কমালো বাংলাদেশের জ্বালানি খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিইআরসি। এর ফলে ১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের নতুন দাম ৫০ টাকা কমে দাঁড়ালো ১১৭৮ টাকা। তবে এখনও এ দামে সবত্র মিলছে না এলপিজি সিলিন্ডার। আবার অনেকের কাছে এখনও পৌঁছেইনি দাম কমার খবর।  

রাজধানীর আফতাব নগরে ছোট্ট একটি হোটেল পরিচালনা করেন বিক্রমপুরের জাফর ইকবাল। একেতো করোনাকালে ধুকে ধুকে চলছে তার এই হোটেল। তার উপর সব পণ্যেরই দাম বেশি। ফলে দিন শেষে লাভের মুখ দেখতে পারছেন না জাফর ইকবাল। বললেন, এলপিজি’র দাম আরেকটু কমলে কিছুটা স্বস্তি মিলতো তার। 

তবে গ্রাহক পর্যায়ে টানা পাঁচ মাস মূল্যবৃদ্ধির পর রান্নার কাজে ব্যবহৃত তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস বা এলপিজির দাম কমতে শুরু করে, গেলো ডিসেম্বরে। বছরের শুরুতেই দ্বিতীয়বারের মতো প্রতি কেজিতে এলপিজি’র দাম কমলো, ৪ টাকা ১৫ পয়সা। 

বিইআরসির ঘোষিত নতুন দাম অনুয়ায়ী, জানুয়ারিতে প্রতিকেজি এলপিজির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য হবে ৯৮ টাকা ১৭ পয়সা। যা ডিসেম্বরে ছিলো ১০২ টাকা ৩২ পয়সা। এই হিসাবে প্রতি কেজিতে এলপিজির দাম কমছে ৪ শতাংশ। দাম কমার কারণে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ১২ কেজির এলপিজি সিলিন্ডারের দাম নতুন হারে দাঁড়াচ্ছে ১১৭৮ টাকা। যা ডিসেম্বরে ১২২৮ টাকা ছিল। অর্থাৎ, ১২ কেজির সিলিন্ডারে একজন ভোক্তার সাশ্রয় হবে ৫০ টাকা। 

তবে সোমবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে নতুন এই দাম কার্যকরের নির্দেশনা থাকলেও এখনও রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ জেলায় এলপিজি সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে বেশি দামে। আবার এলপিজি’র যে দাম কমেছে সেটাও জানেন না অনেকে। 

এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, মোটরগাড়ির জন্য অটোগ্যাসের দামও বর্তমানে প্রতি লিটার ৫৭.২৪ টাকা থেকে কমিয়ে ৫৪.৯৫ টাকা করা হয়েছে। যদিও দাম কমলেও ভাড়া কমেনি গ্যাস চালিত পরিবহনের। 

জানা গেছে, সৌদি সিপি অনুসারে জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রোপেন ও বিউটেনের দাম যথাক্রমে প্রতি টন ৭৯৫ থেকে কমে ৭৪০ এবং ৭৫০ ডলার থেকে কমে ৭১০ ডলারে নেমেছে। তবে গ্যাসের দাম সমন্বয় করা হলেও, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য কমলেও কমেনা দেশের বাজারে। 



একাত্তর/ এনএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন