ঢাকা ২৯ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

ওমিক্রন সুনামির মধ্যেই ইউরোপে টিকাবিরোধী বিক্ষোভ

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ০৯ জানুয়ারী ২০২২ ১৬:৪৮:৩৭ আপডেট: ০৯ জানুয়ারী ২০২২ ১৭:৫২:৫১
ওমিক্রন সুনামির মধ্যেই ইউরোপে টিকাবিরোধী বিক্ষোভ

নতুন বছরের শুরুতেই করোনার অতিসংক্রমণের কবলে পড়েছে গোটা ইউরোপ, আর এর ভেতরেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকার বিরুদ্ধে পশ্চিম ইউরোপে হাজার হাজার মানুষ নেমে এসেছেন রাজপথে। ইউরোপে করোনায় অন্যতম ঝুঁকিতে থাকা দেশ ফ্রান্সে এক লাখের বেশি মানুষ লকডাউনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন। টিকা বিরোধীদের দাবি, সরকার টিকা না নেওয়াদের অধিকার খর্ব করতে চায়। রোববার (৮ জানুয়ারি) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় জানায়, বিক্ষোভ থেকে ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আহত হয়েছেন এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য। 

এদিকে শুক্রবারও ফ্রান্সে একদিনে তিন লাখের বেশি করোনা শনাক্ত হয়। দেশটির সংসদের নিম্নকক্ষ এরই মধ্যে করোনার বিধিনিষেধ সম্পর্কিত একটি আইন পাস করেছে। যাতে বলা হয়, বাইরে খাওয়া-দাওয়া, ভ্রমণ, বাস-ট্রেনে যাতায়াত ও কোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে হলে দুই ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে।

ইউরোপের আরেক দেশ অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ৪০ হাজারের বেশি মানুষ বিক্ষোভ করেছেন। সেখানে আগামী মাস থেকে টিকা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। তবে পুলিশ জানিয়েছে, বিক্ষোভ অনেকটাই শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে।

করোনায় ইউরোপে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ দেশের মাঝে অন্যতম জার্মানি, সেখানেও বিভিন্ন শহরে টিকাবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে। সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে হামবুর্গে। সেখানে ১৬ হাজার মানুষ অংশ নেয় বলে জানায় দেশটির পুলিশ।

দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী কার্ল লাউটারবাখ বলেন, টিকা বিরোধীরা ও করোনাভাইরাস অস্বীকারকারীদের যুক্তিগুলো সব দিক থেকেই গুরুত্ব হারিয়েছে।

ইউরোপে করোনায় তৃতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যুর সাক্ষী দেশ ইতালিতেও করোনায় টিকার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে। দেশটির তুরিন শহরে করোনা নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছেন শত শত মানুষ। দেশটিতে কঠোর করোনা-বিধি চালু হবে সোমবার থেকে। এ নিয়মানুসারে, যারা টিকা নেয়নি তারা আর গণপরিবহন ও রোস্তোরাঁয় যেতে পারবেন না।


একাত্তর/এসএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন