ঢাকা ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

গরমের কারণে ৩২০০ কর্মঘণ্টা হারাচ্ছে বাংলাদেশ, বলছে গবেষণা

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১৪ জানুয়ারী ২০২২ ২৩:৩৮:০৩
গরমের কারণে ৩২০০ কর্মঘণ্টা হারাচ্ছে বাংলাদেশ, বলছে গবেষণা

হিউমিড হিট বা ভ্যাপসা গরমের কারণে দেশের অন্তত ৩২০০ কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে বলে সম্প্রতি এক গবেষণায় উঠে এসেছে। ওই গবেষণার প্রাপ্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয় এনভায়রনমেন্টাল রিসার্চ লেটার্স জার্নালে।

প্রকাশিত গবেষণায় মূলত বাইরে খোলা স্থানে ভারী ভারী কাজ করা মানুষের কর্মঘণ্টা কমে যাওয়ার বিষয়টি উঠে এসেছে। খবর বিবিসি বাংলার।

হিউমিড হিট, শ্রম এবং উৎপাদনশীলতার ওপর কেমন প্রভাব ফেলে সে বিষয়ে ধারণা নিতে গবেষকরা ১৯৮১ থেকে ২০০০ সালের গবেষণার সাথে, ২০০১ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত চালানো গবেষণার তুলনা করেন।

গবেষণার ফলাফলে দেখা গিয়েছে, ২০০১ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে এই ভ্যাপসা গরমের জন্য মানুষদের বাইরে কাজ করা ক্রমেই কঠিন এবং বিপজ্জনক হয়ে উঠছে।

সর্বশেষ ২০ বছরে সারা বিশ্বে প্রতি বছর প্রায় ৬৭ হাজার সাতশ’ কোটি কর্মঘণ্টা নষ্ট হয়েছে। যা আগের ২০ বছরে তুলনায় ৪০০ ঘণ্টা বেশি। টাকার অংকে এই ক্ষতির পরিমাণ প্রতি বছর দুই লাখ কোটি ডলারেরও বেশি।

এই ক্ষতির পরিমাণ করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বিশ্বব্যাপী মোট আর্থিক ক্ষতির প্রায় সমান।

এর মধ্যে ভারত প্রায় ২৫ হাজার ৯০০ কর্ম ঘন্টা হারিয়েছে, যেখানে চীন হারিয়েছে ৭২০০ ঘন্টা।

গবেষকরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ভারত গত ২০ বছর, তার আগের ২০ বছরের তুলনায় প্রতিবছরে অতিরিক্ত ২৫০০ কর্মঘণ্টা হারিয়েছে, এবং একই সময়ে চীন হারিয়েছে বছরে অতিরিক্ত ৪০০ কোটি ঘণ্টা।

আরও পড়ুন: ফাইজারের আরো ২৩ লাখ টিকা দেশে পৌঁছেছে

গবেষণায় অনুযায়ী, গত চার দশকে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে কমর্মঘণ্টার ক্ষতি কমপক্ষে নয় শতাংশ বেড়েছে।

জলবায়ুতে সামান্য পরিবর্তন দেশটির সার্বিক অর্থনীতি ও শ্রমশক্তিকে বড় ধরণের প্রভাব ফেলতে পারে বলেও গবেষণায় আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন