ঢাকা ২২ জানুয়ারী ২০২২, ৮ মাঘ ১৪২৮

আজ থেকে নতুন নিয়মে চলবে গণপরিবহন

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১৫ জানুয়ারী ২০২২ ১১:৪৪:৪৩ আপডেট: ১৫ জানুয়ারী ২০২২ ১২:৫৩:২২
আজ থেকে নতুন নিয়মে চলবে গণপরিবহন

করোনার ঊর্ধ্বগতি রুখতে আজ শনিবার (১৫ জানুয়ারি) থেকে পরিবর্তিত নিয়মে গণপরিবহন চলার কথা রয়েছে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে আজ থেকে আসন সংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার কথা গণপরিবহন। তবে বাস চলবে পূর্ণ যাত্রী নিয়েই। ট্রেন চলবে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে। আর লঞ্চের বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। ফলে আগের মতোই যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে লঞ্চে।

সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। বাসে স্যানিটাইজার রাখতে হবে। করোনা টিকার সনদ ছাড়া বাস চালাতে পারবেন না চালক ও শ্রমিকরা।

রেল সচিব ড. হুমায়ুন কবির বলেন, সরকারি নির্দেশনা মেনে শনিবার থেকে অর্ধেক সিট খালি রেখে ট্রেন যাত্রী পরিবহন করবে।


চট্টগ্রাম থেকে একাত্তরের নিজস্ব প্রতিবেদক জানিয়েছেন, করোনার ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ প্রতিরোধে সারাদেশের মতো চট্টগ্রাম থেকেও অর্ধেক আসন খালি রেখে যাত্রী নিয়ে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। 

চট্টগ্রামের রেল কর্মকর্তারা জানান, সকল ট্রেন নির্ধারিত সময়সূচি মেনে ও অর্ধেক আসন খালি রেখে চলাচল করছে। ট্রেনে যাত্রীদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। 

এছাড়া অনলাইনে অর্ধেক এবং কাউন্টার থেকে অর্ধেক টিকেট বিক্রি করা হচ্ছে। 

সকালে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী সুবর্ণ, চট্টলা যথাক্রমে সাত টা ও সাড়ে আটটা এবং সিলেটগামী পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ৯টায় অর্ধেক আসন খালি রেখে স্টেশন ছেড়ে গেছে। 

তবে ট্রেনের যাত্রীরা জানিয়েছেন, স্টেশন এবং ট্রেনের ভেতরে স্বাস্থ্যবিধি মানানোর জন্য রেল কর্তৃপক্ষের কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি।

বিআইডব্লিউটিএ সূত্র বলছে, লঞ্চ অর্ধেক আসন খালি রেখে যাতায়াত করলেও ভাড়া বাড়বে না।

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ থেকে জানিয়েছেন, জেলার ভেতরে গণপরিবহনগুলোতে যাত্রীরা স্বাস্থ্যবিধি কিছুটা মেনে চললেও ময়মনসিংহ ও রাজধানী অভিমুখে যাওয়া গণপরিবহনে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। স্থানীয় প্রশাসনের ঢিলেঢালা নজরদারির ও বেশিরভাগ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে উদাসীনতা লক্ষ্য করা গেছে। 

নিজস্ব প্রতিনিধি, নরসিংদী থেকে জানিয়েছেন, গণপরিবহন চলাচলে সরকারি নির্দেশনায় কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা থাকলেও নরসিংদীতে এ নির্দেশনা মানছেন না কেউ। নির্দেশনা বাস্তবায়নে স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারি নেই কোথাও। আজ থেকে শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রী চলাচলের কথা থাকলেও কোনো উদ্যোগেই নেই জেলার বাসস্ট্যান্ডগুলোতে। তবে পরিবহন মালিকরা বলছেন, চালক ও যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মানানোর জন্য প্রত্যোক বাসস্ট্যান্ডগুলোতে পরিবহন কর্তৃপক্ষের লোকজন রয়েছে।

এদিকে, গত ১৩ জানুয়ারি ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ দাবি করেছেন, মালিক পক্ষের চাপে বাসে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত থেকে সরকার সরে এসেছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বাসে যত আসন রয়েছে তত যাত্রী পরিবহন করা হবে। 


নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর থেকে জানান, গাজীপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া এবং গাজীপুরের ওপর দিয়ে যাওয়া বিভিন্ন ট্রেনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্তটি যেন কাগজে-কলমেই রয়েছে। আন্তঃনগর ট্রেনগুলোতে যাত্রী সংখ্যা কম থাকলেও লোকাল ট্রেনে দেখা যাচ্ছে প্রতি সিটে দুইজন- তিনজন করে বসে রয়েছে। এমনকি ঠাসাঠাসি করে দাঁড়িয়েও যাত্রীরা যাচ্ছেন তাদের গন্তব্যে। 

যাত্রীরা বলছেন, অফিস-আদালত, কল-কারখানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সবকিছু স্বাভাবিক রেখে কোনোভাবেই অর্ধেক যাত্রী বহন সম্ভব নয়।তাই বাধ্য হয়েই তারা যাচ্ছেন নিজ নিজ গন্তব্যে। 

অন্যদিকে, রেলওয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে তারা চেষ্টা করে যাচ্ছেন। গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে মাইকিং করছেন।

আরও পড়ুন: হাড় কাঁপানো শীত নিয়ে এলো মাঘ

তিনি জানান, ভাড়া না বাড়িয়ে অর্ধেক আসনে যাত্রী নেওয়ার বিপক্ষে অবস্থান নেন মালিকরা। সেই চাপেই সব আসনে যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত এসেছে। 

যদিও বিআরটিএ’র পক্ষ থেকে এরকম খবর এখনও পাওয়া যায়নি।


একাত্তর/এসি 

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন