ঢাকা ২২ মে ২০২২, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

করোনাকে ‘বুড়োআঙ্গুল’ দেখানো শিল্পীর করোনায় মৃত্যু

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২০ জানুয়ারী ২০২২ ১০:৪৫:৩৩ আপডেট: ২০ জানুয়ারী ২০২২ ১৬:৪৫:৪৩
করোনাকে ‘বুড়োআঙ্গুল’ দেখানো শিল্পীর করোনায় মৃত্যু

স্বেচ্ছায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া এবং করোনা প্রতিরোধী টিকার বিরোধীতাকারী ইউরোপের দেশ চেক রিপাবলিকের এক লোকসংগীত শিল্পী অবশেষে করোনায় আক্রান্ত হয়েই মারা গেছেন। মৃত ওই সংগীতশিল্পীর ছেলের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, করোনায় মারা যাওয়া ওই শিল্পীর নাম হানা হরকা। ৫৭ বছর বয়সী এই শিল্পী করোনার টিকা নেননি। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তিনি সুস্থ হয়ে উঠছিলেন বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া এক বার্তায় নিজেই জানিয়েছিলেন হানা। তবে এর দু’দিন পরই মারা যান তিনি।

হানা হরকার ছেলে জ্যান রেক বলছেন, তিনি ও তার বাবা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তার মা হানা স্বেচ্ছায় ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। মূলত থিয়েটারসহ নির্দিষ্ট কিছু ভেন্যুতে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পাস নেওয়ার জন্য তিনি স্বেচ্ছায় করোনাভাইরাসের সংস্পর্শে এসেছিলেন।

অবশ্য জ্যান রেক ও তার বাবা আগেই করোনা টিকার ডোজ সম্পন্ন করেছিলেন। তবু ক্রিসমাসের সময় তারা করোনায় আক্রান্ত হন। ছেলের দাবি, তিনি ও তার বাবা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও তাদের থেকে হানা দূরে থাকতে চাননি। স্বামী ও সন্তানের সঙ্গে থাকতে তিনি নিজেও বরং ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পথই বেছে নেন।

জ্যান রেক বলেন, ‘আমরা করোনা পজিটিভ হওয়ার পর এক সপ্তাহ আমাদের থেকে তার দূরে থাকা উচিত ছিল। কিন্তু তিনি পুরো সময়টিই আমাদের সাথে ছিলেন।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিনেমা হল, বার ও ক্যাফেসহ সামাজিক ও সাংস্কৃতিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে চেক রিপাবলিকে টিকার সনদ অথবা সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এমন প্রমাণ দেখাতে হবে। আর হানা হরকা যেহেতু টিকা নেননি তাই সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সেসব অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার শর্ত পূরণ করতেই হয়তো স্বেচ্ছায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।

হানা হরকা অ্যাসোন্যান্স নামক একটি চেক লোকসঙ্গীত ব্যান্ডের কণ্ঠশিল্পী ছিলেন। এই ব্যান্ডটি চেক রিপাবলিকের পুরোনো ব্যান্ডগুলোর একটি। একবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হলে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতের ওপর বিধিনিষেধ অনেকটাই কমে যাবে, এ কারণেই ভাইরাসে সংক্রমিত হতে চেয়েছিলেন তার মা।

করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তিনি সুস্থ হয়ে উঠছিলেন বলে নিজেই জানিয়েছিলেন হানা হরকা। তবে গত রোববার তিনি মারা যান।

রেক তার মায়ের মৃত্যুর জন্য স্থানীয় ভ্যাকসিন বিরোধী আন্দোলনকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ‘আন্দোলনের নেতারা আমার মাকে টিকা নেওয়ার বিরুদ্ধে রাজি করিয়েছিলেন। এটা দুঃখজনক- তিনি তার পরিবারের চেয়ে অপরিচিতদের বেশি বিশ্বাস করেছিলেন।’


একাত্তর/এসএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন