ঢাকা ০১ জুলাই ২০২২, ১৭ আষাঢ় ১৪২৯

ঈদের সময়ে লঞ্চের যাত্রী ঢাকায় থাকলেও টিকেট বরিশালে

ইশতিয়াক ইমন, একাত্তর
প্রকাশ: ১৭ এপ্রিল ২০২২ ২০:৫২:৩৮ আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০২২ ২২:২৮:৩১
ঈদের সময়ে লঞ্চের যাত্রী ঢাকায় থাকলেও টিকেট বরিশালে

যাত্রী ঢাকায় কিন্তু টিকেট বরিশালে। শুনতে অবাক লাগলেও গত দুই যুগ ধরে ঢাকা বরিশাল রুটে ঈদ উপলক্ষে লঞ্চের আগাম টিকেট বিক্রি হচ্ছে এভাবেই। 

বরিশালে থেকে সেই টিকেট পেতেও এবার কিছু লঞ্চের ক্ষেত্রে নির্ভর করতে হবে লটারি ভাগ্যের ওপর। বিশেষ করে কেবিনের টিকেট সোনার হরিণ হতে পারে এবারও। 

অন্যদিকে, জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাবার কারণে, ভাড়া এতটাই বাড়ানো হয়েছে যে, ঈদের সময় এবার আর বাড়তি ভাড়া নিতে চাচ্ছে না মালিকরা। 


প্রতি বছর ঈদ যাত্রায় নৌপথে দক্ষিণাঞ্চলের লাখো মানুষ রাজধানী ছাড়ে। তাদের সিংহভাগেরই গন্তব্য থাকে বরিশাল ও পটুয়াখালি। 

বছরজুড়ে বরিশালগামী লঞ্চের কেবিনের টিকেট বিক্রি হয় সদরঘাট থেকে। কিন্তু ঈদে বরিশাল যেতে হলে আগাম টিকেট কিনতে হচ্ছে বরিশাল থেকেই। 

কিছু কিছু বিলাসবহুল লঞ্চ আছে, যাদের টিকেটের ভাগ্য ঠিক হয় লটারির মাধ্যমে। এবারও তার কোন ব্যতিক্রম ঘটছে না। চাহিদার অনেক বেশি থাকায় লটারি করতেই হয় প্রতিবার। 

লঞ্চ শ্রমিকরা জানায়, রাজনৈতিক নেতা, প্রশাসনিক কর্তা থেকে শুরু করে প্রভাবশালীদের জন্য কোটা ভিত্তিক টিকেট রাখতে হয়।

তাই ঈদের সময়ে বেশিরভাগ লঞ্চের মালিক বরিশালেই কেবিনের টিকেট বিক্রি করেন। আর এর ব্যতিক্রম হাতে গোনা। 


মালিক সমিতি বলছে, বারবার তাগাদা দিলেও মালিকরা ঢাকার টিকেট ঢাকায় বিক্রি করতে চায় না। এক্ষেত্রে বিআইডাব্লিউটিকে এগিয়ে আসতে হবে। 

ঢাকা বরিশাল রুটে ঈদে কেবিনের চাহিদা কয়েকগুন হয়ে যায়। তাই সবাইকে ঈদে কেবিন দেয়া সম্ভব নয় বলছেন মালিকরা।

আরও পড়ুন: ঈদে ঢাকা ছাড়ছে কোটি মানুষ, নৈরাজ্য ও ভোগান্তির আশঙ্কা

এদিকে, ভাড়া বাড়ানোর পর বিলাসবহুল লঞ্চে সিঙ্গেল কেবিনের ভাড়া ১,৫০০ টাকা। আর ডাবল কেবিনের ভাড়া ২,৫০০ টাকা। চার জনের ভিআইপি কেবিনে যা ১০ হাজার টাকা। 

ডেকের ভাড়া ৩৫০ টাকা। লঞ্চের ভাড়া এতোটাই বেড়েছে যে, বর্ধিত ভাড়াই নিতে পারছে না লঞ্চগুলো। ঈদে তাই ভাড়া বাড়ছে না। 


একাত্তর/এসি

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন