ঢাকা ১২ আগষ্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

কর্মনিষ্ঠাই সাফল্য এনে দিয়েছে শেফ খলিলুর রহমানকে

বিশেষ প্রতিনিধি, নিউইয়র্ক
প্রকাশ: ১২ মে ২০২২ ১১:৩২:৫৪
কর্মনিষ্ঠাই সাফল্য এনে দিয়েছে শেফ খলিলুর রহমানকে

একজন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী হিসেবে নিউইয়র্কে বেশ সফল মো: খলিলুর রহমান। একসময় নিজে অন্যের প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। তবে দিনে দিনে প্রচণ্ড পরিশ্রমে নিজেই হয়ে উঠলেন উদ্যোক্তা; নিজের নামে খুললেন রেস্টুরেন্ট।

তার ‘খলিল বিরিয়ানি’ নামের প্রতিষ্ঠানটি এখন একটি ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছে। যার পথ ধরে তিনি একে একে প্রতিষ্ঠা করেছেন আরও কিছু প্রতিষ্ঠান। অর্জন করেছেন নানা স্বীকৃতি। আর তার সাফল্যের পালকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অর্জন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছ থেকে পাওয়া প্রেসিডেন্টশিয়াল অ্যাওয়ার্ড।

কর্মনিষ্ঠা আর সৎ প্রচেষ্টাই তাকে সাফল্য এনে দিয়েছে বলে মনে করেন নিউইয়র্কের বিশিষ্ট এই শেফ মো: খলিলুর রহমান। সম্প্রতি তার প্রেসিডেন্টশিয়াল অ্যাওয়ার্ড অজন উপলক্ষ্যে গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এমন কথা বলেন তিনি। 

খলিলুর রহমান বলেন, "মানুষের ভালোবাসাই আমার চলার পথের পাথেয়। যে আস্থা অর্জন করেছি, তা ধরে রাখার সম্ভাব্য সব প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।"   

ব্রঙ্কসে তার রেস্টুরেন্টে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন নিউইয়র্কের বিভিন্ন পত্রিকা ও টেলিভিশনের সম্পাদক ও সাংবাদিকেরা। সাংবাদিক ও লেখক শামীম আল আমিনের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও ভ্রমণ বিশেষজ্ঞ হাবিব রহমান। এরপর মো: খলিলুর রহমান বক্তব্য রাখেন। পরে সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকরা তার অর্জনে যেমন অভিনন্দন জানান, তেমনি নানা প্রশ্নও করেন।   

মো. খলিলুর রহমান জানান, বাংলাদেশের বিরিয়ানীকে তিনি আন্তর্জাতিক একটি ব্যান্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চান। এইরমধ্যে বিভিন্ন দেশের মানুষ তার রেস্টুরেন্টে বাংলাদেশের খাবারের স্বাদ নিতে আসে উল্লেখ করে তিনি বলেন, "ভবিষ্যতে নিউইয়র্কের অন্যান্য এলাকাসহ যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য স্টেটে শাখা খোলার চেষ্টা চলছে।"

 

শেফ খলিলুর রহমান বলেন, "প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভালোবাসা আর নিউইয়র্কের মিডিয়ার সহযোগিতায় আমার এতদূর আসা সম্ভব হয়েছে।" 

সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি আরও বলেন, "আমি একজন সার্টিফায়েড সেফ হিসাবে রান্না করি। নতুন নতুন রেসিপি মানুষকে উপহার দেয়ার চেষ্টা করি। সামাজিক উন্নয়নমূলক নানা কাজেও ভূমিকা রাখার চেষ্টা করছি। তবে এসব খবর দেশে-বিদেশে সবার কাছে তুলে ধরে খলিল বিরিয়ানীকে ব্রান্ড হিসেবে পরিচিত করেছেন সাংবাদিকরা।"

এ সময় তার ডাকে সাড়া দিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হবার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

আরও পড়ুন: চীনে বিমানে আগুন, প্রাণে বাঁচলেন ১১৩ যাত্রী ও ৯ ক্রু

মতবিনিময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাপ্তাহিক বাঙালী সম্পাদক কৌশিক আহমদ, সাপ্তাহিক পরিচয় সম্পাদক নাজমুল আহসান, বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভির সিইও আবু তাহের, সাপ্তাহিক বাংলাদেশের উপদেষ্টা আনোয়ার হোসাইন মঞ্জু, সম্পাদক ডা. ওয়াজেদ এ খান, সাপ্তাহিক জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার, প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার সম্পাদক ইব্রাহীম চৌধুরী, ইউএসএনিউজ অনলাইন.কম সম্পাদক এবং নিউজ২৪ইউএসএ.কম’র প্রধান সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, সাপ্তাহিক প্রবাস সম্পাদক মোহাম্মদ সাঈদসহ অনেকেই।  


একাত্তর/আরবিএস  

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

১ মাস ১০ দিন আগে