ঢাকা ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

নির্মাণাধীন প্রায় সব ভবন এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র

মনির মিল্লাত, একাত্তর
প্রকাশ: ১৭ মে ২০২২ ১৯:৫৯:১২ আপডেট: ১৭ মে ২০২২ ২০:৩৮:৪১
নির্মাণাধীন প্রায় সব ভবন এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র

নির্মাণাধীন প্রায় প্রতিটি ভবন এডিস মশার প্রজনন ক্ষেত্র। পরিত্যক্ত বিভিন্ন পাত্র কিংবা বেজমেন্টের জমা পানিতে জন্মাচ্ছে ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশা। 

ভয়াবহ এমন চিত্র উঠে এসেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের দশ দিনের চিরুনি অভিযানের প্রথম দিনে। গুলশান-উত্তরার বেশিরভাগ নির্মাণাধীন ভবনেই মিলেছে এডিসের লার্ভা। 

মঙ্গলবার (১৭ মে) রাজধানীর গুলশান দুই নম্বরে ৮৬ নম্বর রোডের শেষ প্রান্তে দেখা গেলো সেখানে একটি বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। 

ভেতরে মোটামুটি পরিষ্কার। কিন্তু নির্মাণ শ্রমিকদের গোসলের জন্য যেখানে পানি জমা রাখা হয়েছিলো সেখানেই মিললো ডেঙ্গুর বাহক এডিসের লার্ভা। 

সিটি কর্পোরেশনের ভ্রাম্যমান আদালতের সামনে দায় স্বীকার করে নেন ভবন সংশ্লিষ্টরা। তবুও গাফিলতির কারণে গুনতে হয় দুই লাখ টাকা জরিমানা।

কিছু দূরে আরেকটি নির্মাণাধীন বহুতল ভবন। সেখানেও পাওয়া গেলো এডিসের লার্ভা। উত্তর সিটির অভিযান দল ভবনের বেজমেন্টের জমা পানিতে এডিসের লার্ভা পান। তাদেরকেও দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। 

আরও পড়ুন: পদ্মা সেতুর টোল চূড়ান্ত: গাড়ি ৭৫০ ও বাস ২,৪০০ টাকা

গেলো বারের তুলনায় এবার ডেঙ্গু পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে। বর্ষা-পূর্ব মশা জরিপে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমন আশংকার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার থেকে দশ দিনের এডিস নির্মূল চিরুনি অভিযান শুরু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন। 

উত্তরের দশ এলাকায় ২৬ মে পর্যন্ত চলবে অভিযান। সঙ্গে থাকছে নিয়মিত মশা নিধন কার্যক্রম। উত্তর সিটির প্রধান নির্বাহী সেলিম রেজা জানান, এবার আগেই মাঠে নেমেছেন তারা।

ফুলের টব, এসি কিম্বা ফ্রিজের পাত্রে জমা পরিষ্কার পানিতে জন্মে এডিস মশা। তাই, বাসা বাড়ির কোথাও যেনো পরিষ্কার পানি জমা না থাক সেটি নিশ্চিত করতে নগরবাসীর প্রতি আহবান জানিয়েছে উত্তরের নগর প্রশাসন।


একাত্তর/এসজে

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

বাতাস যখন ভয়ঙ্কর-২

৪ দিন ১৬ ঘন্টা আগে