ঢাকা ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পদ্মা সেতুর টোলকে যৌক্তিক বললেন সংশ্লিষ্ট ও বিশেষজ্ঞরা

নয়ন আদিত্য, একাত্তর
প্রকাশ: ২২ মে ২০২২ ১৫:০৯:০৯ আপডেট: ২২ মে ২০২২ ১৫:১০:১৩
পদ্মা সেতুর টোলকে যৌক্তিক বললেন সংশ্লিষ্ট ও বিশেষজ্ঞরা

পদ্মা সেতুর টোল কি বেশি হলো, নাকি এই সময়ের বাস্তবতা, সেতু নির্মাণের খরচ এবং সেবার মূল্য হিসেবে ঠিকই হলো? কি ভাবছেন এই নিয়ে সংশ্লিষ্টরা?

যারা এই সেতু ব্যবহার করবেন, সেই বাস ট্রাকের ড্রাইভার শ্রমিক ও মালিক সমিতির নেতারা বলছেন, ফেরিঘাটের ভোগান্তি ও খরচ বিবেচনায় টোল খুব একটা বেশি হয়নি।

বিশেষজ্ঞরাও বলছেন, টোলের অঙ্ক সামঞ্জস্যপূর্ণ। নির্ধারিত অংকে টোল আদায় করা ছাড়া পদ্মা সেতুর টাকা উঠানো সম্ভব নয়। আর টোল থেকে আয় জন উন্নয়ন প্রকল্পেই ব্যয় হবে।

যমুনা সেতুতে মটর সাইকেলের জন্য টোল দিতে হয় ৫০ টাকা। পদ্মায় দিতে হবে ১০০ টাকা। আর ফেরিতে মোটর সাইকেলের জন্য লাগে ৭০ টাকা। 

আট থেকে ১০ টনি ট্রাকের জন্য ফেরিতে ১ হাজার ৮৫০ টাকা। সেতুতে অতিরিক্ত লাগবে এক হাজার টাকা। বড় বাসের জন্য ফেরিতে ১ হাজার ৫৮০ টাকা। 

আর সেতুতে দুই হাজার টাকা। কিন্তু ঘাটের যানজট, ফেরির জন্য অপেক্ষা, শ্রমিকদের খরচ আর সময়- সব মিলে পদ্মা সেতুর টোল কি আসলেই বেশি? 

পদ্মা পার হতে গেলে পণ্যবোঝাই একটি ট্রাককে অপেক্ষা করতে হয় দুই থেকে তিনদিন। ফেরির টোল ছাড়াও শ্রমিকদের এই অপেক্ষার খরচ সেতুর টোলের চেয়েও কয়েকগুণ বেশি।

কারণ একটি ট্রাকচালক ও হেলপারের থাকা-খাওয়া ও হাত খরচ মিলিয়ে ব্যয়টা অনেক। আর ভারি ট্রাকের বেলায় পদ্মা সেতুর কারণে দূরত্ব কমবে কমপক্ষে ৪০০ কিলোমিটার। 

বাংলাদেশ ট্রাক কাভার্ডভ্যান পরিবহণ মালিক সমিতির মহাসচিব আব্দুল মাহতাব জানান, পদ্মা সেতুর টোল সার্বিক বিবেচনায় ঠিক আছে। এতে করে ট্রাকের ব্যয় বাড়বে না, কমবে কিছুটা। 

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির সভাপতি মশিউর রহমান রাঙ্গা মনে করেন, ফেরির জন্য অপেক্ষা, পারাপার সময়, যাত্রী ভোগান্ত ও সময়ের হিসাবে টোলের হার যৌক্তিক আছে।

পরিবহণ বিশেষজ্ঞ শামসুল হক বললেন খরচ, সময় আর বাস্তবতা সব মিলে টোল সামঞ্জস্যপূর্ণ। 

সরকার বলছে এই টোলে ১৫-১৬ বছরেই পদ্মাসেতু নির্মাণের খরচ উঠবে। তবে টোল কিছু কম হলে সব মানুষই সেতু ব্যবহারে আগ্রহী হবে। সেই অঙ্কে আর বেশি লাভ আসবে বা আসতে পারে বলেই মনে করছেন এই পরিবহন বিশেষজ্ঞ।


মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন