ঢাকা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

রাজধানীতে নতুন রোগী কমলেও কমেনি গুরুতর রোগী

নয়ন আদিত্য
প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২১ ১৫:১৬:৪১ আপডেট: ২৪ এপ্রিল ২০২১ ১৪:৫৯:০২
রাজধানীতে নতুন রোগী কমলেও কমেনি গুরুতর রোগী

১৫ দিন আগেও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হতে আসা করোনা আক্রান্ত রোগীদের চাপ ছিল সীমাহীন। মিনিটে মিনিটে আসছিল নতুন রোগী। এমন অবস্থায় দায় হয়ে উঠেছিল হাসপাতালে বিছানা পাওয়া। তবে গত কয়েকদিনের চিত্রটা একটু ভিন্ন। চিকিৎসকরা বলছেন, করোনা আক্রান্ত নতুন রোগীর সংখ্যা কমলেও গুরুতর রোগীদের চাপ তেমনটা কমেনি। চাপ অব্যাহত আছে আইসিইউ’র ওপর।

শুধু ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল নয়, ১৫ দিন আগে রাজধানীর সব হাসপাতালের চিত্র ছিল একই। কিন্তু গেলো ৪-৫ দিনে ঢাকা মেডিকেল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালসহ অন্য হাসপাতালগুলোতে নতুন রোগীর চাপ কমেছে কয়েকগুণ।

চিকিৎসকরা বলছেন, ইউকে ও আফ্রিকান ভেরিয়েন্ট সংক্রমণের লক্ষণ দেরিতে প্রকাশ করছে। আর যখন লক্ষণ দেখা দিচ্ছে তখন রোগীরা গুরুতর অবস্থায় চলে যাচ্ছে। অন্যদিকে টেস্ট কম ও লকডাউনের কারণে হাসপাতালে চাপ কমেছে বলে মনে করা হচ্ছে। 

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ মোহাম্মদ খাইরুল একাত্তরকে বলেন, গুরুতর অবস্থায় যাওয়া রোগীর সংখ্যা কমেনি। তবে অল্প মাত্রার সংক্রমণ নিয়ে আসা রোগীর সংখ্যা কমেছে।

মুগদা জেনারেল হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ নন্দিতা পালন বলেন, কম টেস্ট ও লকডাউনের কারণে হয়তো করোনা টেস্ট করার সংখ্যা কিছুটা কমেছে। তাছাড়া নতুন ভেরিয়েন্টের সংক্রমণের বৈশিষ্ট্য কিছুটা ভিন্ন হওয়ায় মানুষ অনেক সময় দেরিতে উপসর্গগুলো বুঝতে পারছেন। 


এদিকে লকডাউনের আগে পরীক্ষার বিবেচনায়  আক্রান্তের হার যেখানে ছিলো ২২ শতাংশ। লকডাউনের পর ধীরে ধীরে তা এখন ১৪ দশমিক ৬৩ শতাংশে নেমেছে। ক্ষুদ্র হলেও এটিকে কিছুটা অগ্রগতি মনে করছেন চিকিৎসকরা। 

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন