ঢাকা ১৬ মে ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

বাস না চললে দিতে হবে বিনামূল্যে খাবার

দাবি আন্দোলনরত পরিবহন শ্রমিকদের

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ০২ মে ২০২১ ১০:৫৩:১৮ আপডেট: ০২ মে ২০২১ ২০:১৩:০৩
বাস না চললে দিতে হবে বিনামূল্যে খাবার

রাজধানীর মহাখলীতে ঈদের আগেই দ্রুততম সময়ে মধ্যে পরিবহন খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকেরা। সকাল সাড়ে দশটায় মহাখালী বাসটার্মিনালের সামনের সড়কে তারা এ সমাবেশ করে। এসময় পরিবহন নেতারা দাবি করেন যদি সরকার পরিবহন খুলে দিতে রাজি না হয় তাহলে শ্রমিকদের বিনামূল্যে খাবার ও ওএমএসএর মাধ্যমে নায্যমূল্যে চাল দিতে হবে। মার্কেট খুলে দেয়ার উদাহরণ টেনে তারা বলেনসরকার করোনার সংক্রমন শুধু পরিবহনেই দেখতে পাচ্ছেকিন্তু কোনো জায়গাতেই স্বাস্থ্যবিধিমানা হয় না।

গণপরিবহন খুলে দেওয়ার দাবিতে আজ সারাদেশে বিক্ষোভ ডেকেছিল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। গত ৩০ এপ্রিল তাদের সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচির কথা ঘোষণা করে তারা।

এ ব্যাপারে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন 'একাত্তর সকাল'-এ উপস্থিত হয়ে সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সভাপতি হানিফ খোকন বলেনবিগত ২৫ এপ্রিল তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি জমা দিয়েছিলেন। সেখানে পরিবহন শ্রমিকদের খাদ্যসহায়তা এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরন করে স্বল্প পরিসরে গণপরিবহন খুলে দেওয়ার অনুরোধ করা হয়। শ্রমিকদের সহায়তার জন্য মালিকপক্ষ ও ফেডারেশন কি করছে তা জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেনতারা চার হাজার শ্রমিককে সহায়তা দিয়েছেন। কিন্তু সারাদেশের পঞ্চাশ লাখ শ্রমিকের জন্য আরও সহায়তা প্রয়োজন। তার কাছে আরও জানা যায়ফেডারেশন শ্রমিকদের কাছ থেকে বছরে আঠারোশো কোটি টাকা  সংগ্রহ করে। এ সময় তিনি নিয়োগপত্র এবং অন্যান্য সুবিধার জন্য মালিকপক্ষের কাছে অনুরোধ জানান।  

গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার প্রসঙ্গে দৈনিক যুগান্তরের প্রধান প্রতিবেদক মাসুদ করিম বলেনবিক্ষোভ-মিছিল সংক্রমণের জন্য আরও ভয়াবহ হতে পারে। শ্রমিকদের কষ্ট লাঘব করার জন্য সরকার ও মালিকপক্ষ থেকে সাহায্য দেওয়া যায় কিনা সেটি বিবেচনা করতে হবে। সঞ্চালক প্রশ্ন রেখেছিলেন যেসড়ক আইন কার্যকর না করতে বিভিন্ন সময়ে মালিকরা শ্রমিকদেরই রাস্তায় নামিয়ে দেন। তাহলে মালিকরা কেন শ্রমিকদের জন্য এগিয়ে আসেন নাজবাবে তিনি বলেনচাঁদা তোলার ব্যাপারে ফেডারেশনের জবাবদিহিতা থাকা প্রয়োজন। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এসব ব্যাপারের সমাধান করতে হবে। 

উল্লেখ্যগত ১ মে মাননীয় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানিয়েছিলেন যে সরকার গণপরিবহন ব্যবস্থা খুলে দেওয়ার চিন্তা করছে।



মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন