ঢাকা ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

মৌসুমীর মন্তব্যের উত্তরে যা বললেন ওমর সানী

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১৩ জুন ২০২২ ১৬:৩২:৫৮ আপডেট: ১৩ জুন ২০২২ ২৩:৪০:২০
মৌসুমীর মন্তব্যের উত্তরে যা বললেন ওমর সানী

ঢাকাই চলচ্চিত্র দুনিয়ায় এখন সবচেয়ে আলোচিত বিষয় জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে ঘিরে চিত্রনায়ক ওমর সানী ও জায়েদ ইস্যু। তিনজনের কথা আর অভিযোগে সরগরম মিডিয়া।

দুই দিন ওমর সানী বিশাল এক অভিযোগ আনেন জায়েদের বিরুদ্ধে। মৌসুমীর স্বামী সানীর দাবি, জায়েদ তার স্ত্রীকে অনেক দিন করে নানাভাবে বিরক্ত করে আসছেন।

এই নিয়ে রোববার সন্ধ্যায়, অভিনেতা জায়েদ খানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি বরাবর অভিযোগও জানান ওমর সানী।

এই ঘটনার পর মৌসুমীর তরফে কোন তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। পরে খবর ছড়িয়ে যাওয়ার ২৬ ঘণ্টা পর সোমবার সকালে হঠাৎ একটি অডিও বার্তা ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

সেখানে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবির নায়িকা মৌসুমী দাবি করেন, জায়েদের সঙ্গে তার ভালো সম্পর্ক রয়েছে। ওমর সানীর আনা অভিযোগ একদম সত্য নয়।

সেই অডিও বার্তা প্রচারের পর তা নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে ফেসবুক লাইভে আসেন ওমর সানী। সেখানে তিনি দাবি করেন, তিনি যা বলেছেন, সব সত্য। যথেষ্ট প্রমাণ তাদের কাছে আছে।


ওমর সানী বলেন, আমি অডিও বার্তা শুনেছি, সে কেন বা কী কারণে তার স্বামীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, সে-ই ভালো বলতে পারবে।

সানী আরও বলেন, সে আমার সন্তানের মা, তার প্রতি আমার সম্মান আছে। কিন্তু আমার কাছে সব তথ্য-প্রমাণ আছে, আমার ছেলে তা দেখাবে আপনাদের।

মৌসুমী এখনও তার স্ত্রী এমনটা দাবি করে ওমর সানী বলেন, আমার সন্তানের মা সে। আমি তাকে অসম্মান করে কিছু বলতে চাই না। তার প্রতি সম্মান ছিলো, আছে।

তিনি জানান, তাদের মধ্যে সম্পর্ক এখন ভালো নেই। মনোমালিন্য চলছে, যা প্রায় সব পরিবারে থাকে। তবে তারা একই ছাদের নিচে আছেন বলেও জানান সানী।

তিনি বলেন, সে (মৌসুমী) যা বলেছে, কি ভেবে বলেছে আই ডোন্ট নো। এ বিষয় নিয়ে কিছুদিন ধরে একটু দূরত্ব তো চলছিল।

কিন্তু আপনারা ভালো জানবেন, ফোন রেকর্ড অনুযায়ী তার সাথে আমার ফোনেও কথা হচ্ছিল না। আমি তার ব্যাপারে মন্দ কথা, খারাপ কথা কিছুই বলবো না। কারণ সে স্টিল আমার স্ত্রী।

ওমর সানী আরও বলেন, আমি কি বলেছি না বলেছি সম্পূর্ণ আমার ছেলে ফারদিন, আমার মেয়ে ফাইজা জানে।

আমাদের কাছে যথেষ্ট পরিমাণ প্রমাণ আছে জায়েদ খান যে মৌসুমীকে ডিস্টার্ব করেছে। ফারদিন বলুক আর ফাইজা বলুক তাদের মায়ের সম্পর্কে।

সানী আরও যোগ করেন, আমার ছেলেমেয়েরা কথা বলুক এ বিষয়গুলো নিয়ে। তারা যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই হবে। আমি কিছু বলতে চাই না।

ছয় মিনিটের বেশি ফেসবুক লাইভে ওমর সানী বারবার সবার প্রতি অনুরোধ করেছেন যেন চলমান বিষয়টি নিয়ে কেউ যেন মৌসুমীকে নিয়ে বাজে মন্তব্য না করেন।

সেই সঙ্গে অডিও বার্তায় দেয়া মৌসুমীর বক্তব্যের বিপরীতে তাকে অসম্মান করা হয়- এমন কোনো ধরনের বক্তব্য দেবেন না বলেও জানিয়ে দেন ওমর সানী।

এর আগে সোমবার সকালে ছড়িয়ে পরা ২ মিনিট ২৩ সেকেন্ডের সেই অডিও বার্তায় মৌসুমীকে বলতে শোনা যায়, আমি মনে করি, আমার প্রসঙ্গ টানার কোনো প্রয়োজনীয়তাই ছিল না।

আমি জায়েদকে অনেক স্নেহ করি। সে আমাকে যথেষ্ট সম্মান করে। আমাদের মধ্যে যতটুকু কাজের সম্পর্ক, সেটা অনেক ভালো সম্পর্ক। সেখানে আমাকে অসম্মান করার প্রশ্নই ওঠে না।

ওর মধ্যে আমি গুণ ছাড়া অপ্রীতিকর কিছুই দেখি না। কোনো পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারে, সেটা আমি দেখিনি। ও ভালো ছেলে। সে আমাকে কখনোই অসম্মান করেনি।

অডিও বার্তায় মৌসুমী আরও বলেন, আমাকে এই ছোট করার মধ্যে যাকে আমরা শ্রদ্ধা করে এসেছি আমাদের ওমর সানী ভাই, তিনি এখন কেন এত আনন্দ পাচ্ছেন, সেটা আমি বুঝতে পারছি না। আমার কোনো সমস্যা থাকলে আমার সঙ্গে সলভ করবে। সেটিই আমি আশা করি।

সম্প্রতি ডিপজলের ছেলের বিয়েতে ওমর সানী ও জায়েদ খানকে ঘিরে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে। মৌসুমীকে হয়রানি ও বিরক্ত করার কারণে ওমর সানী সেই অনুষ্ঠানে জায়েদকে চড় মারেন।

অন্যদিকে ওমর সানীকে পিস্তল বের করে মারার হুমকি দেন জায়েদ। দুই দিন ধরে এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুমুল আলোচনা ও সমালোচনা তৈরি করেছে।

 

একাত্তর/এআর


মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন