ঢাকা ১৫ জুন ২০২১, ১ আষাঢ় ১৪২৮

সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ না নিতে সরকারকে পরামর্শ

কাবেরী মৈত্রেয়
প্রকাশ: ০৮ জুন ২০২১ ১৭:৪৭:৩৬ আপডেট: ০৯ জুন ২০২১ ১৩:৪০:২৩
সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ না নিতে সরকারকে পরামর্শ

বাজেট ঘাটতি মেটাতে, সরকার সঞ্চয়পত্র থেকে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭৪ শতাংশ বেশি ঋণ নিয়েছে। এই হিসাব চলতি অর্থবছরের দশ মাসের। 

যেখানে পুরো অর্থবছরে ঋণ নেবার কথা ছিলো ২০ হাজার কোটি টাকা। এই অবস্থায় নতুন অর্থবছরের জন্য এই খাত থেকে আবারও ৩২ হাজার কোটি টাকা নিতে চায় সরকার। 

ব্যাংকে লাখ টাকার বিপরীতে লভ্যাংশ মিলছে বড় জোর ৬ শতাংশ। শেয়ারবাজারে বিনিয়োগও আজকাল নিরাপদ নয়। কিন্তু সঞ্চয়পত্রে সুদ মিলছে ১১ শতাংশের ওপরে। 

তাই মূলধন নিরাপদ রেখে বেশি মুনাফা পেতে বেশিরভাগ মানুষের আগ্রহ সঞ্চয়পত্রের দিকে। তাদের সোজা কথা, সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ নিরাপদ ও সবচেয়ে লাভজনক।

প্রতি মাসেই পাওয়া যায় লাভ। তাই দেশের অনেক পরিবারের আয়ের উৎস এখন এই সঞ্চয় পত্র। এটি গ্রাহকদের জন্যে লাভজনক বিনিয়োগ হলেও সরকারের জন্য এটি ঋণ। 

উন্নয়ন কর্মকাণ্ডসহ নানা প্রয়োজনে এই খাত থেকে ঋণ নিয়ে থাকে সরকার। চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র থকে সরকার ঋণ নিয়েছে প্রায় ৯২ হাজার কোটি টাকা। অথচ নেয়ার পরিকল্পনা ছিলো মাত্র ২০ হাজার কোটি টাকা। 

আগামী অর্থবছরের জন্য এই খাত থেকে সরকার নিতে চায় প্রায় ৩২ হাজার কোটি টাকা। এমন প্রবণতার সমালোচনা করে অর্থনীতিবিদ ড. আহসান এইচ মনসুর বলছেন, অর্থনীতির স্বার্থে নয় রাজনৈতিক স্বার্থেই এই ঋণ নেয়া হচ্ছে। যা সরকারের ওপর সুদের বোঝা বাড়াচ্ছে। 

সেই সঙ্গে সরকারের এই বিনিয়োগ সেবার সুবিধা আবার কারা পাচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন এই অর্থনীতিবিদ। তার মতে, সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত করে বরং উৎপাদনশীল খাতে অর্থের যোগাণ দেয়া যেতে পারে। নয়তো ঋণের ঘুর্ণায়মান ধারায় ঘুরবে দেশ। 



একাত্তর/এআর

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন