ঢাকা ১৫ জুন ২০২১, ১ আষাঢ় ১৪২৮

বিশ্বে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ১৬ কোটি: জাতিসংঘ

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১০ জুন ২০২১ ২৩:২৩:০১ আপডেট: ১০ জুন ২০২১ ২৩:২৩:০১
বিশ্বে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ১৬ কোটি: জাতিসংঘ

২০২০ সালের শুরুতে বিশ্বে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছিলো ১৬ কোটি। করোনা মহামারীর আগে থেকেই এই সংখ্যা বাড়তে শুরু করে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও জাতিসংঘ শিশু তহবিল (ইউনিসেফ)। দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করতে ব্যর্থ হলে আগামী দুই বছরে আরও পাঁচ কোটি শিশু বাধ্য হয়ে শ্রমে যুক্ত হবে।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ প্রকাশিত যৌথ প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসে। 

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক হেনরিটা ফরে বলেন, শিশুশ্রম থেকে শিশুদের ফিরিয়ে স্কুলমুখী করতে সরকার ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন ব্যাংকগুলোকে এ খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বজুড়ে শিশু শ্রমের সংখ্যা পৌঁছেছে ১৬ কোটিতে। গত চার বছরে নানা ধরণের শ্রমে যুক্ত হয়েছে আরও ৮৪ লাখ শিশু। ২০০০ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ছিলো ৯ কোটি ৪০ লাখ। করোনা মহামারিতে দ্রুত হারে বাড়তে থাকে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা। বিশ্বের প্রতি ১০টি শিশুর একটি শিশুশ্রমে যুক্ত হয়ে পড়ে। সবচেয়ে বেশি শিশুশ্রম বেড়েছে আফ্রিকার সাহারা অঞ্চলে। 

প্রতিবেদনে ইউনিসেফ ও আইএলও তাদের শঙ্কার কথা জানিয়ে বলেছে, মহামারীর কারণে যদি দারিদ্র্য বাড়ার সর্বশেষ সম্ভাবনাগুলো সত্যি হয়, তাহলে ২০২২ সাল নাগাদ শিশুশ্রমে যুক্ত হবে আরও ৯০ লাখ শিশু।

প্রতিবেদনটির সহলেখক ক্লডিয়া জানান, বর্তমান স্তরের তুলনায় যদি সামাজিক সুরক্ষার আওতা কমে যায়, তবে কঠিন দারিদ্র্যের শিকার হয়ে ২০২২ সালের শেষ নাগাদ আরও চার কোটি ৬০ লাখ শিশুশ্রমিক তৈরি হবে।

আরও পড়ুন: রেকর্ডসংখ্যক রোগী শনাক্তের পর রাজশাহীতে সর্বাত্মক লকডাউন

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) এবং আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থা (আইএলও) পরিচালিত শিশুশ্রম সমীক্ষা ২০১৩ অনুযায়ী বাংলাদেশে সাড়ে ৩৪ লক্ষ কর্মজীবী শিশু রয়েছে। যার মধ্যে প্রায় ১৭ লক্ষ শিশু শ্রমে নিয়োজিত। এই ১৭ লাখ শিশুর মধ্যে ১২ লাখ ৮০ হাজার শিশু ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমে নিয়োজিত রয়েছে। শ্রমে নিযুক্ত শিশুদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ গৃহকর্মে নিযুক্ত।

২০২০ সালে বাংলাদেশে আইএলও এর কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পৌটিআইনেন জানিয়েছিলেন, করোনা মহামারী আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ শিশু শ্রম হ্রাসে দারুন কাজ করে আসছিল। কিন্তু চলমান মহামারীর কারণে এই অর্জন যেন নস্যাৎ না হয় তা নিশ্চিত করতে অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় এখন সবাইকে আরও বেশি সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে।  


একাত্তর/আরবিএস  

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন