ঢাকা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

অবৈধ মুঠোফোনের বিরুদ্ধে আগামী মাস থেকে ‘ব্যবস্থা’

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৪ জুন ২০২১ ২১:৩৫:৪৫ আপডেট: ২৬ জুন ২০২১ ০৯:৫৪:২৪
অবৈধ মুঠোফোনের বিরুদ্ধে আগামী মাস থেকে ‘ব্যবস্থা’

দীর্ঘদিন ধরেই মুঠোফোন গ্রাহকদের তালিকাভুক্ত করতে চাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এরই ধারাবাহিকতায় জুলাই মাস থেকে পরীক্ষামূলকভাবে গ্রাহকদের মুঠোফোনের বৈধতা যাচাই কার্যক্রম শুরু করবে সংস্থাটি।

বর্তমানে যেসব মুঠোফোন চালু রয়েছে সেগুলো ৩০ জুনের মধ্যে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হবে। আপাতত গ্রাহকের হাতে থাকা মুঠোফোন বন্ধ হবে না। কিন্তু এরপর থেকে নতুনভাবে কোনো অবৈধ ফোন ব্যবহারের সুযোগ দেয়া হবে না গ্রাহকদের।

মুঠোফোন বৈধ না অবৈধ, তা যাচাই করতে বিটিআরসি ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্টার (এনইআইআর) নামের এ ব্যবস্থা চালু ও পরিচালনার জন্য দরপত্র আহ্বান করে গত বছরের শুরুতে। প্রযুক্তিগত সমাধান পেতে সংস্থাটি সিনেসিস আইটি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করে গত নভেম্বরে।

বিটিআরসির স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহিদুল আলম এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, আগামী ১ জুলাই এ পরীক্ষামূলক কার্যক্রম উদ্বোধন করা হবে। এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তিন মাস পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবস্থাটি চালানো হবে। এ কার্যক্রম চালু হলে অবৈধ সেট শনাক্ত করা যাবে।

আরও পড়ুন: গুগল সার্চ হিস্ট্রি গোপন রাখবেন যেভাবে

এর আগে গত বছরের জানুয়ারিতে মুঠোফোন বৈধভাবে আমদানি করা বা দেশে উত্পাদিত কিনা, তা যাচাইয়ে তথ্যভাণ্ডার চালু করা হয়েছিল। খুদে বার্তা পাঠিয়ে গ্রাহকদের বৈধ বা অবৈধ মোবাইল চিহ্নিত করার সুযোগ দেয়া হয়েছিল। তবে তা খুব একটা কাজে আসেনি।

খাত-সংশ্লিষ্টদের মতে, প্রতি বছর দেশে যত সেলফোন আমদানি হয়, তার ২৫-৩০ শতাংশই আসে অবৈধভাবে। এজন্য ১ হাজার কোটি টাকার বেশি রাজস্ব হারায় সরকার। এনইআইআর চালু হলে অবৈধভাবে সেলফোন আমদানি একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন বিটিআরসির কর্মকর্তারা।



একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন