ঢাকা ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়াতে তৃতীয় কিশোয়ার চৌধুরী

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১৩ জুলাই ২০২১ ১৮:২১:১০ আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২১ ০৯:৪৬:১১
মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়াতে তৃতীয় কিশোয়ার চৌধুরী

মাস্টারসেফ অস্ট্রেলিয়ায় তৃতীয় হয়েছেন বাংলাদেশী বংশদ্ভুত কিশোয়ার চৌধুরী। রান্না বিষয়ক এই জনপ্রিয় অনুষ্ঠানে তিনি সেরা হতে না পারলেও, লাখো কোটি দর্শক ও ভক্তের হৃদয়ে অনেক আগেই চ্যাম্পিয়ন হয়ে বসে আছেন কিশোয়ার।

মঙ্গলবার দুই দিনব্যাপী মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার ফাইনাল রাউন্ড অনুষ্ঠিত হয়। ফাইনালে লড়াইটা হয়েছে ত্রিমুখি। তিন প্রতিযোগী কিশোয়ার চৌধুরীজাস্টিন নারায়ণ ও পিট ক্যাম্পবেলের মধ্যে।


শেষ পর্বে হেঁশেলের খেলায় ‘আন্ডার ডগ’ থেকেও বিচারকদের মন কেড়ে নেন, ফিজির ভারতীয় বংশদ্ভুত প্রতিযোগী জাস্টিন নারায়ণ। অন্যদিকে পান্তা আর আলুভর্তার মতন খাঁটি বাংলাদেশী রান্না করে গোটা পর্বে সবার মন জয় করা কিশোয়ার ফাইনালে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে পারেননি।

তবে অস্ট্রেলিয়ার প্রবাসী বাংলাদেশিরা তো বটেই অস্ট্রেলিয়ার মূলধারার গণমাধ্যমেও জয়জয়কার ছিলো কিশোয়ারের রান্নার কারিশমা। প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছেন পিট ক্যাম্বেল। চ্যাম্পিয়ন জাস্টিন পাবেন ২ লক্ষ ৫০ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার। যা প্রায় ১ কোটি ৬২ লক্ষ টাকা। অন্যদিকে পিট ও কিশোয়ার পাবেন যথাক্রমে ৩০ ও ২০ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার।

এর আগে মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার ফাইনাল রাউন্ডে উঠে চমক দেখান কিশোয়ার চৌধুরী। পরে গেল রোববার তিনি প্রথম তিনজনের মধ্যে চলে আসেন। এই তিন জনের মধ্যেই সোমা ও মঙ্গলবার দুই দিনের ফাইনাল রাউন্ড অনুষ্ঠিত হয়।

মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়া বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ রান্না বিষয়ক টেলিভিশন রিয়ালিটি-শো। বিশ্বের প্রায় ৪০টি দেশ এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। 

মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ায় এবারের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কিশোয়ার চৌধুরীর নানা পদের রান্নার একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। লাউ চিংড়ি থেকে শুরু করে বেগুন ভর্তাখিচুড়িআমের টকখাসির রেজালাফুচকাচটপটিসমুচার রেসিপি দিয়ে সবাইকে অবাক করে দেন কিশোয়ার।

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের বাসিন্দা কিশোয়ার। পেশায় বিজনেস ডেভেলপার এবং পারিবারিক প্রিন্টিং ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। বাবা কামরুল হোসেন চৌধুরী। ভিক্টোরিয়া রাজ্যের ব্যবসায়ীসমাজসেবক ও মুক্তিযোদ্ধা এবং মা লায়লা চৌধুরী।

বাবার বাড়ি ঢাকার বিক্রমপুরে। আর মায়ের বাড়ি পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে। কিশোয়ারের জন্ম ও বেড়ে উঠা অস্ট্রেলিয়াতেই। মোনাস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাণিজ্যে স্নাতক করার পর লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইনে মাস্টার্স করেছেন।

বাঙালি রান্নার প্রতি কিশোয়ার শৈশব থেকেই ঝোঁক ছিলো কিশোয়ার। বাবা-মা সেই ছোটবেলা থকেই রান্নার বিভিন্ন উপাদান সম্পর্কে সব তথ্য মেয়েকে জানাতেন। নিজেদের বাগানে ফলানো শাক-সবজি দিয়ে ছোটবেলা থেকেই রান্নায় হাত পাকান কিশোয়ার।

রান্নাঘরে মাকে সহায়তা করতে গিয়ে ধীরে ধীরে রান্নার প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেন কিশোয়ার। একটা সময় মা তার মেয়েদের হাতে ছেড়ে দিতেন বিভিন্ন পদ রান্নার করার কাজ। এমনও হয়েছে একদিন বা একবেলার রান্না কিশোয়ার ও তার বোন মিলেই করে ফেলেছন।

কিশোয়ারের মাস্টারশেফে অংশ নেয়ার চিন্তা মাথায় আসে ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়াতে করোনা মহামারী পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর। ১১ বছরের ছেলে মিকাইল ও চার বছরের মেয়ে সেরাফিনার উৎসাহে তিনি নাম নাম লেখান মাস্টারশেফে। সেই সঙ্গে ছিলো জীবনসঙ্গী এহতেশাম নেওয়াজের সার্বক্ষণিক সমর্থন।


মাস্টারশেফের প্রাথমিক বাছাইয়ের বৈতরণী পার হয়ে কিশোয়ার জায়গা করে নেন সেরা ২৪ জনের মধ্যে। তারপর শুরু হয় কঠিন লড়াই। শুরু থেকে কিশোয়ারের ইচ্ছা ছিলো বাঙালি খাবার বা রসনাকে অস্ট্রিলিয়ার পাশাপাশি গোটা বিশ্বে তুলে ধরা।

মাস্টারশেফ অস্ট্রেলিয়ার ১৩তম আসরের শুরু থেকেই কিশোয়ার বাঙালি রান্নার নানা পদ তৈরি করে বিচারকদের মন জয় করতে থাকেন। তার পান্তা ভাত আর আলু ভর্তা তো রীতিমিতো বিচারকদের মধ্যে বিস্ময় সৃষ্টি করেছে, কারণ এমন খাবারের নাম আগে কখনও শুনেননি।

এভাবেই ধাপে ধাপে কিশোয়ার মাস্টারশেফের ফাইনাল রাউন্ডে চলে আসেন। তৃতীয় স্থান পেলেও এখানেই থেমে যেতে রাজি নন কিশোয়ার। বাঙালি সংস্কৃতি আর খাবার নিয়ে একটি বই লেখার ইচ্ছা আছে জানিয়েছেন কিশোয়ার চৌধুরী।

একাত্তর/এআর


মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন