ঢাকা ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮

করোনার মৌখিক ওষুধ আবিষ্কার ইসরাইলের!

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২২ জুলাই ২০২১ ২১:৫৬:১৫ আপডেট: ২৪ জুলাই ২০২১ ১০:৪৯:২৩
করোনার মৌখিক ওষুধ আবিষ্কার ইসরাইলের!

করোনা কবলিত বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ইসরায়েল শুরু করতে যাচ্ছে ভাইরাসটির বিরুদ্ধে মৌখিক ওষুধের পরীক্ষা। জেরুজালেমভিত্তিক ওরামেড ফার্মাসিউটিক্যালসের সিইও নাদাভ কিদরন জেরুজালেম পোস্টকে এমনটি জানিয়েছেন।

ওরামেডের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ওরাভ্যাক্স মেডিকেল এখন ইসরায়েলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে যা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। 

এরমাঝেই ওরাভ্যাক্স ইউরোপে কয়েক হাজার ক্যাপসুলের জিএমপি উৎপাদন সম্পন্ন করেছে আর এগুলো ইসরায়েলের ট্রায়ালে ব্যবহার করার পর অন্যান্য দেশেও ব্যবহার করা যাবে বলে জানা গেছে।

ওরামেড হাদাসা-বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের উদ্ভাবিত প্রযুক্তির উপর নির্ভরকারী একটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালভিত্তিক ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি। গত মার্চে ভারতের প্রিমাস বায়োটেকের সঙ্গে যৌথভাবে নভেল ওরাল টিকা উৎপাদনের ঘোষণা দিয়েছিল তারা। এই দুই কোম্পানি একসঙ্গে ওরাভ্যাক্স গঠন করেছে। তাদের বানানো টিকাটি ওরামেডের ‘পিওডি’ ওরাল ডেলিভারি প্রযুক্তি ও প্রিমাসের টিকা প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হযেছে।

ওরামেডের প্রযুক্তি প্রোটিনভিত্তিক অন্যান্য চিকিৎসায়ও মৌখিকভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে আবার ইঞ্জেকশন হিসেবেও নেওয়া যাবে।

ধারণা করা হচ্ছে, ওরাভ্যাক্সের নতুন পরীক্ষামূলক টিকাটি নতুন করোনাভাইরাসের তিনটি গঠনগত প্রোটিনকে লক্ষ্যবস্তু বানাবে। ওপর দিকে বাজারে থাকা মর্ডানা ও ফাইজারের টিকা করোনাভাইরাসের শুধু স্পাইক প্রোটিনকে লক্ষ্যবস্তু বানায়।

এই টিকাটি প্রিক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় ডেল্টাসহ করোনাভাইরাসের অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টগুলোর বিরুদ্ধেও পরীক্ষা করা হচ্ছে।

এসব টিকা ফ্রিজের তাপমাত্রাতেই পরিবহন করা সম্ভব আর এমনকি ঘরের তাপমাত্রায়ও সংরক্ষণ করা সম্ভব। ওরাল টিকায় পেশাদার প্রশাসনের কোনো প্রয়োজন হবে না।   


একাত্তর/এসএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন