ঢাকা ১৯ সেপ্টেম্বার ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের দরকার ১৯৪ রান

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৫ জুলাই ২০২১ ১৮:৪৩:৪৮ আপডেট: ২৫ জুলাই ২০২১ ২৩:৫৩:৩৯
সিরিজ জিততে বাংলাদেশের দরকার ১৯৪ রান

রায়ান বার্লের শেষ ক'ওভারের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ১৯৩ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়েছে জিম্বাবুয়ে। ১৮ ও ২০তম ওভারে সাইফউদ্দিন দিয়েছেন ৩৫ রান। ১৫ বলে ৩১ রান করে অপরাজিত ছিলেন বার্ল। 

এর আগে মাত্র একবারই এতো বড় টার্গেট তাড়া করে জিতেছে বাংলাদেশ। ফলে সিরিজ জিততে কঠিন একটা চ্যালেঞ্জের সামনেই পড়াছে টাইগাররা।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে তৃতীয় টি–টোয়েন্টিতেও টস হেরে আগে ফিল্ডিং করে বাংলাদেশ দল।  প্রথম টি–টোয়েন্টিতে ৮ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে জিম্বাবুয়ে জিতেছে ২৩ রানে। ফলে তিন ম্যাচের এই সিরিজের ফাইনালই এই ম্যাচ। 

আগের ম্যাচের একাদশ নিয়েই মাঠে নেমেছে স্বাগতিকরা। বাংলাদেশ দলে আছে একটি পরিবর্তন: মেহেদী হাসানের বদলে এসেছেন বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ।

তাদিওয়ানশে মারুমানি প্রথম বল থেকেই দিয়েছেন আক্রমণের ইঙ্গিত। তাসকিন আহমেদের এক ওভারেই ৫টি চার মেরে আগ্রাসী ভূমিকায় ছিলেন ওয়েসলি মাধেভেরেও। 

সাইফউদ্দিনের ফুললেংথের এক বলে আড়াআড়ি খেলে সাজঘরে ফেরেন তাদিওয়ানাশে মারুমানি ২০ বলে ২৭ রান করে। পাওয়ার প্লের শেষ বলে ৬৩ রানে ভেঙেছে ওপেনিং জুটি। 

এরপর মাঠে আসেন ফর্মে থাকা রেজিস চাকাভা। নেমেই আগ্রাসী তিনি। নাসুমের প্রথম ওভারে রিভার্স-সুইপের পর সাকিবকে টেনে আরেকটি ছয় মেরেছেন চাকাভা। চাকাভা নাসুমকে মেরেছেন টানা তিন ছয়। প্রতিটিই ছিল স্লটে, প্রতিটিই টেনে ডিপ মিডউইকেটের ওপর দিয়ে সীমানার বাইরে পাঠিয়েছেন চাকাভা। শেষ বলটা ফুললেংথে করেছেন, তবে এর আগেই নাসুমের দ্বিতীয় ওভারে উঠেছে ২১ রান! এই চাকাভা ঝড়ের পর ১১ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের স্কোর দাঁড়ায় ১ উইকেটে ১২২ রান।

চাকাভাকে থামিয়ে টাইগারদের শিবিরে ক্ষণিকের স্বস্তি আনেন সৌম্য সরকার। বলটা ফুললেংথ থেকে স্লগ সুইপ করেছিলেন চাকাভা, সেটি গিয়েছিল মিডউইকেটে। পেছাতে পেছাতে বাউন্ডারির একেবারে ওপর গিয়ে সেটি ধরেছিলেন নাঈম। মোমেন্টাম ধরে রাখতে বাউন্ডারি পেরিয়ে যেতে হয়েছে তাঁকে, তবে এর আগেই বলটা ছুঁড়ে দিয়েছেন বাউন্ডারির ভেতরে। ছুটে গিয়ে সেটি নিয়েছেন শামীম হোসেন। ২২ বলে ৪৮ রান করে ফিরলেন চাকাভা। 

ওই ওভারেই জিম্বাবুয়ে অধিনায়ককেও ফেরান সৌম্য। ফুললেংথের বলের লাইন পুরোপুরি মিস করেছেন সিকান্দার রাজা। বল তাঁর প্যাডে লেগে ভেঙেছে স্টাম্প। 

টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে চতুর্থ ফিফটি পেলেন ওয়েসলি মাধেভেরে। তবে সৌম্যর জোড়া উইকেটের পর রান-রেট কমে এসেছে জিম্বাবুয়ের। শেষ ৩ ওভারে উঠেছে ১৭ রান। ৬ ওভার বাকি থাকতে জিম্বাবুয়ের স্কোর ছিলো ৩ উইকেটে ১৩৯ রান। 

সাকিবকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে গড়বড় হয়ে গেছে মাধেভেরের। শর্ট থার্ডম্যানে ধরা পড়েছেন। ৩৬ বলে ৫৪ রান করেই ফিরলেন তিনি, ইনিংসে মেরেছেন ৬ চার। শরীফুলকে তুলে মারতে গিয়ে ডিপ স্কয়ার লেগে ধরা পড়েছেন ডিওন মায়ার্স।

রেজিস চাকাভা ও ওয়েসলি মাধেভেরের তাণ্ডব থামিয়ে দিয়েছিলেন সৌম্য সরকার, এক ওভারে দুই উইকেট নিয়ে। এর পরের ৬ ওভারে উঠেছিল ৩৪ রান। তবে সাইফউদ্দিনের করা ১৮তম ওভারে আবারও একটা লাফ দিয়েছে জিম্বাবুয়ে। 

ডেথ ওভারে দারুণ বোলিং করেছেন শরীফুল। এ সময়ে ২ ওভারে তিনি দিয়েছেন মাত্র ৮ রান, ১৯তম ওভারে দিয়েছেন মাত্র ২। শেষ পর্যন্ত ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

একাত্তর/জো  


মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন