ঢাকা ১৯ সেপ্টেম্বার ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে বহিষ্কার করলেন প্রেসিডেন্ট

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৬ জুলাই ২০২১ ১১:০৩:২৮ আপডেট: ২৭ জুলাই ২০২১ ১১:৩৪:০৬
তিউনিসিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে বহিষ্কার করলেন প্রেসিডেন্ট

তিউনিসিয়ায় প্রচণ্ড বিক্ষোভের মুখে প্রধানমন্ত্রী হিচেম মেচিচিকে বহিষ্কার করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট কায়েস সাঈদ। সেইসাথে দেশটির সংসদও স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। 

সরকার করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি সামাল দিতে ব্যর্থ হওয়ায় রোববার (২৫ জুলাই) হাজার হাজার নাগরিক আন্দোলন করতে নামেন। এসময় পুলিশের সাথে তাদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। 

রাজধানী তিউনিসসহ বেশ কয়েকটি শহরে তারা বিক্ষোভ করেন। এসময় তারা 'বেরিয়ে যাও' বলে স্লোগান দিতে থাকেন এবং সংসদ স্থগিত করার দাবি জানান। এছাড়া, তারা ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ইন্নাহদা পার্টির অফিস ভাংচুর করেন।   

পরিস্থিতি সামাল দিতে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা পার্লামেন্ট ভবনসহ রাজধানীর কেন্দ্রীয় অ্যাভিনিউ বুরগিবা ঘেরাও করে রাখে, যেখানে ২০১১ সালে তিউনিসিয়ার বিপ্লব সঙ্ঘটিত হয়েছিলো। এসময় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের দিকে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে এবং বেশ কয়েজকজনকে গ্রেপ্তার করে। 


আরও পড়ুন: নরওয়ের আকাশে খসে পড়লো বিশাল আকারের উল্কা

আন্দোলনের মুখে রোববার প্রেসিডেন্ট কায়েস সাঈদ প্রধানমন্ত্রীকে বহিষ্কার করে এক ঘোষণায় বলেন, নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দিয়ে তার সহায়তায় তিনি দেশে শান্তি শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনবেন। এক টেলিভিশন বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা ফিরিয়ে এনে রাষ্ট্রকে রক্ষা করার জন্য আমরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। 

তবে, সামনে আরও বিশৃঙ্খলা হলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। তিনি জানান, তেমনটা হলে প্রয়োজনে সামরিক শক্তি প্রয়োগ করা হবে। 


হিচেম মেচিচি প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর উল্লাসে ফেটে পড়েন আন্দোলনকারীরা। তাদের এ আনন্দ উল্লাসে যোগ দেন প্রেসিডেন্ট সাঈদও। 

তবে, বিরোধী দলগুলো তার এ পদক্ষেপকে ক্যু হিসেবে দেখছেন। 

এদিকে, সংসদ স্থগিত করার পর সংসদের স্পিকার রাশেদ গানুচিকে সংসদে প্রবেশে বাধা দেয় সৈন্যরা। 

গত সপ্তাহেই হিচেম মেচিচি দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বহিষ্কার করেছিলেন, তবে এতে জনগণের ক্ষোভের প্রশমন হয়নি। 


ছবি: বিবিসি, আলজাজিরা

একাত্তর/এসজে 


মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন