ঢাকা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

সর্বোচ্চ শনাক্তের দিনে মোট মৃত্যু ২০ হাজার ছাড়ালো

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২১ ১৮:৫২:৫৯ আপডেট: ২৯ জুলাই ২০২১ ০৯:৪১:০৯
সর্বোচ্চ শনাক্তের দিনে মোট মৃত্যু ২০ হাজার ছাড়ালো

দেশে করোনা সংক্রমণের ৫০৭ তম দিনে করোনায় আরও ২৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৬ হাজার ২৩০ জন। এখনও পর্যন্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে ১২ লাখ ১০ হাজার ৯৮২ জন।

বুধবার (২৮ জুলাই) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, নতুন মৃত্যু নিয়ে দেশে করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২০ হাজার ১৬ জনের।

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৩ হাজার ৪৭০ জন। এখনও পর্যন্ত ভাইরাসের সাথে লড়াই করে সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৩৫ হাজার ৮৮৪ জন।

দেশে চিকিৎসাধীন রয়েছেন, ১ লাখ ৫৫ হাজার ৮২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৫৬ হাজার ১৫৭টি, আর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৩ লাখ ৮৭৭টি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৭৬ লাখ ১২ হাজার ৫৮৮টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৫ লাখ ৯৭ হাজার ১৫৭টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা করা হয়েছে ২০ লাখ ১৫ হাজার ৪৩১টি।

২৪ ঘণ্টায় রোগী শনাক্তের হার ৩০ দশমিক ১২ শতাংশ, আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৯১ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৬৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৩৭ জনের মধ্যে পুরুষ ১৪৯ জন, আর নারী ৮৮ জন। দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত পুরুষ মারা গেলেন ১৩ হাজার ৬২৭ জন এবং নারী ছয় হাজার ৩৮৯ জন।

২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের বয়স ভিত্তিক বিশ্লেষণে ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে একজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১৫ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৪৫ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৭৮ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৪৪ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩৪ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১১ জন এবং ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ৯ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের রয়েছেন ৭০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৬২ জন, রাজশাহী বিভাগের ২১ জন, খুলনা বিভাগের ৩৪ জন, বরিশাল বিভাগের ৯ জন, সিলেট বিভাগের ১৮ জন, রংপুর বিভাগে ১৬ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগে মারা গেছেন সাত জন।

২৪ ঘণ্টায় সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ১৬৭ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ৫৭ জন এবং বাড়িতে ১৩ জন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইডিসিআর জানিয়েছে, গত জুন মাসে দেশে কোভিড-১৯ রোগীদের নমুনা থেকে ভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্স করে দেখা গেছে, ৭৮ শতাংশই ডেল্টা ধরনের।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গতবছর ৮ মার্চ; তা আট লাখ পেরিয়ে যায় এ বছর ৩১ মে। সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে গত ৭ এপ্রিল রেকর্ড ৭ হাজার ৬২৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়। এরপর আগের সব রেকর্ড ভেঙে ৬ জুলাই ১১ হাজার ৫২৫ জনের করোনার ধরা পড়ে।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বছর ১১ মে তা ১২ হাজার ছাড়িয়ে যায়।

আরও পড়ুন: করোনা ও উপসর্গে দেশের ২৩ জেলায় ১৯৫ মৃত্যু

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডও-মিটারের বুধবার (২১ জুলাই) বিকেলের তথ্য অনুযায়ী বিশ্বে করোনায় এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৪১ লাখ ৯৪ হাজার ৭২৮ জনের। সুস্থ হয়েছেন ১৭ কোটি ৭৭ লাখ ৫৫ হাজার ৩১১ জন। চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১ কোটি ৪১ লাখ ৪৯ হাজার ২৪৮ জন। ভাইরাসে মোট সংক্রমিত হয়েছেন ১৯ কোটি ৬০ লাখ ৯৯ হাজার ২৮৭ জন।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন