ঢাকা ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

দৌলতদিয়ায় পদ্মার পানি বিপৎসীমার ৫৩ সেন্টিমিটার ওপরে

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ী
প্রকাশ: ২৪ আগষ্ট ২০২১ ১৪:০৪:৫৮
দৌলতদিয়ায় পদ্মার পানি বিপৎসীমার ৫৩ সেন্টিমিটার ওপরে

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি আরও দুই সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে এই পয়েন্টে নদীটির পানি বিপৎসীমার ৫৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। পানিবন্দি মানুষের সঙ্গে দুর্ভোগে গৃহস্থের প্রাণিগুলো।

এরই মধ্যে পানিবন্দি হয়ে পরেছেন রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট, মিজানপুর, খানগঞ্জ, চন্দনী, কালুখালী উপজলার রতনদিয়া ও কালিকাপুর, গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম, পাংশা উপজেলার বাহাদুরপুর ও হাবাসপুরসহ ১০টি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার পরিবার। 

সরেজমিন মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের চর বরাট গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে অন্তত দুইশ’ পরিবার পানিবন্দি হয়ে আছে। তাদের কারো বাড়ির উঠানে পানি, কারো রান্না করার চুলার মধ্যে পানি, আবার কারো ঘরের মধ্যে বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। 

এ সময় চর বরাট গ্রামের বাসিন্দা আনোয়ার বেগম বলেন, গত বছর বন্যার সময় চেয়ারম্যান দুর্গতদের তালিকা ও ১০ কেজি চাল দিয়েছিলেন। কিন্তু এ বছর এখনও জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কেউ খোঁজ নিতে আসেনি। 


অপর বাসিন্দা হারুন মল্লিক অভিযোগ করে বলেন, এখানে দুইশ’ পরিবারের বাস। চেয়ারম্যান-মেম্বাররা শুধু ভোটের সময় আসেন, বিপদে কারো খোঁজ মেলেনা। একদিকে খেয়ে না খেয়ে দিন যাপন অন্যদিকে ঘরে সাপ পোকামাকড় ঢুকে পড়েছে। এখন জীবন বাঁচানোই কষ্ট হয়ে গেছে। 

আরও পড়ুন: খালেদা জিয়ার ১১ মামলার শুনানি ২০ অক্টোবর

মিজানুর রহমান খান নামে অন্য এক বাসিন্দা বলেন, সবচেয়ে বেশি কষ্ট আছে গৃহস্থের পশুগুলো। গরুর খাবার চরম আকাল পড়েছে। তাছাড়া বাজারে গো-খাদ্যের যে দাম, এতে গরু বিক্রি করে ফেলা ছাড়া আর উপায় নেই। 

এদিকে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আরিফুল হক বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের দেওয়া তালিকা অনুযায়ী জেলায় সাড়ে আট হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়েছেন। ওই পরিবারগুলোর জন্য খাদ্য সহায়তা পাঠানো হয়েছে। প্রয়োজনের আরও পাঠানো হবে। 

একাত্তর/এসি

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন