ঢাকা ১৯ সেপ্টেম্বার ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

কৃষকের কাজে আসছে না কৃষি আবহাওয়া প্রকল্প

বিধান সরকার, বরিশাল
প্রকাশ: ১৪ সেপ্টেম্বার ২০২১ ১৮:০৩:৪৭ আপডেট: ১৪ সেপ্টেম্বার ২০২১ ২১:৫৩:১৫
কৃষকের কাজে আসছে না কৃষি আবহাওয়া প্রকল্প

বরিশালে কৃষকদের কোন কাজেই আসছে না কৃষি আবহাওয়া প্রকল্প কৃষকদের অভিযোগ বেশিরভাগ ইউনিয়ন পরিষদে বসানো রেইন গেজ মিটার, সোলার প্যানেল এবং আবহাওয়া পূর্বাভাস বোর্ড অকেজো পড়ে রয়েছে

সচল বোর্ডগুলোতেও নিয়মিত তথ্য হাল নাগাদ হয় না কৃষি বিভাগ জানিয়েছে যান্ত্রিক ত্রুটির পাশাপাশি কিছু কর্মকর্তার অবহেলা এর জন্যে দায়ী

জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকির মধ্যে থাকা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান প্রথম সারিতে।

তারপরেও আবহাওয়া ও জলবায়ু নদ-নদীর পানির অবস্থা, আগাম সতর্কীকরণ সম্পর্কিত তথ্যাদি কৃষকদের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে দেশ অনেক পিছিয়ে আছে।

সেই দিন বিবেচনায় নিয়ে নির্ভরযোগ্য কৃষি আবহাওয়া বিষয়ক তথ্য কৃষকদের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার চালু করে ‘কৃষি আবহাওয়া তথ্য পদ্ধতি উন্নতকরণ’ প্রকল্প।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে তাপমাত্রা, বাতাসের আর্দ্রতা, বায়ুপ্রবাহ, আলোক ঘণ্টা, বৃষ্টির পরিমাণ, ঝড়ের পূর্বাভাস এসবের তিনদিন আগের তিন দিন পরের তথ্য পাওয়ার কথা কৃষকদের।

এজন্য বরিশালের বিভিন্ন ইউনিয়নে স্থাপন করা হয় আবহাওয়া পূর্বাভাস বোর্ড। এই বোর্ডের মাধ্যমেই উপরের সব তথ্য কৃষকের পাওয়ার কথা।

এমনই একটি ইউনিয়ন রায়পাশা-কড়াপুর। সেখানকার লোকজন বলেছেন, তারা এই বোর্ড থেকে কখনোই এসব তথ্য জানতে পারেননি

ইউনিয়ন পরিষদের সচিবরাও বলেন, কৃষি আবহাওয়া পূর্বাভাসের বোর্ড আছে, তবে তা কখনোই আপডেট করা হয় না এমনকি মাসিক সভায় হাজিরও হয় না সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

নিয়ে একজন উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জানান তাদের অনেকেই বোর্ড চালানোর প্রশিক্ষণ পাননি। তাছাড়া বেশিরভাগ সময় বোর্ডটি নষ্ট থাকে।আর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানানচাষাবাদের সুবিধার জন্য এই বোর্ড খুবই সময়োপযোগীআর জেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেনএখন তথ্য বোর্ড হালনাগাদে গাফেলতি করলে কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তি নেয়া হবেজেলায় প্রকল্পের মাধ্যমে ৫৮টি আবহাওয়া তথ্য বোর্ড থাকলেও বর্তমানে সচল রয়েছে ১৯টি


একাত্তর/টিএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন