ঢাকা ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

নতুন দুই শাবকের জন্ম দিয়ে আশা দেখাচ্ছে নীলগাই

ইকবাল সরকার, গাজীপুর
প্রকাশ: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৯:৪২:১৯ আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ২১:০৬:২৪
নতুন দুই শাবকের জন্ম দিয়ে আশা দেখাচ্ছে নীলগাই

সচেতন মানুষ না ঠেকালে প্রাণী দু'টির অস্তিত্ব এতদিনে হারিয়ে যেতো ধারালো ছুরির নিচে। কিন্তু তা হয়নি। নানা মানুষের উদ্যোগে প্রাণী দু'টি মিলেছে গাজীপুর বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে।

মাত্র একমাস আগে দু'টি শাবকও জন্ম দিয়েছে। এখন চার চারটি চঞ্চল নীলগাই ছুটে বেড়াচ্ছে সাফারি পার্কের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে।

গাজীপুরের গোটা সাফারি পার্কে এখন ছুটে বেড়ায় দু'টি নীলগাই। এক বছর আগে বিলুপ্তির তালিকায় থাকা প্রাণী দু'টি ভাগ্য গুণে বেঁচে গিয়েছিলো শিকারির ধারালো অস্ত্রের নিচ থেকে।

শুধু তাই নয় একমাস আগে এই সাফারি পার্কেই তারা দু'টি শাবকের জন্ম দিয়েছে। গত পহেলা আগস্ট জন্ম নিলেও গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক কর্তৃপক্ষ তা কাউকে জানায়নি।

নতুন জন্ম নেয়া শাবকের নিরাপত্তা ও প্রকৃতিতে টিকে থাকার চ্যালেঞ্জ থাকায় পার্ক কর্তৃপক্ষ গেলো শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে গণমাধ্যমে জানান।

দেখতে অনেকটা হরিণের মত বাচ্চা দু'টিও বেড়ে উঠছে হরিণের সঙ্গে। সাফারি পার্কের কর্মীরা জানান ১১ মাস আগে এখানে আনা হয়েছিলো দু'টি নীল গাই। প্রায় একই সময়ে আলাদাভাবে দিনাজপুর এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে উদ্ধার করা হয়েছিলো তাদের।

আর সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তবিবুর রহমান জানান, ১৯৪০ সালে সবশেষ বাংলাদেশ অঞ্চলে নীল গাই দেখা গিয়েছিলো। দীর্ঘ ৮০ বছর পর আবার পাওয়া গেলো।

তাই, নতুন জন্ম নেয়া শাবক দুটি থেকেই প্রকৃতি থেকে হারিয়ে যাওয়া পথে থাকা নীলগাইকে প্রকৃতিতে ফিরে আসার সম্ভাবনা দেখছে পার্ক কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন: করোনা সচেতনতা তৈরিতে গ্রামে গ্রামে ঘুরছেন সাবিত্রী

প্রায় বিলুপ্ত প্রাণিদের মধ্যে অন্যতম নীলগাই। সাফারি পার্কে এখন এর সদস্য সংখ্যা চার। তাই এদের দেখতে রীতিমতো ভিড় জমে যাচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা জানান, পুরুষ নীলগাইয়ের বর্ণ গাঢ় ধুসর, অনেকটা কালচে রঙের। অনেক সময় নীলচে আভা দেখা যায় বলে এদের নীলগাই নামকরণ করা হয়েছে।

আর, মাদী নীলগাই এবং শাবকের রং লালচে বাদামী কিন্তু খুরের ওপরের লোম সাদা। ঠোঁট, থুতনি, কানের ভেতরের দিক ও লেজের নিচের তলদেশ সাদা।

নীলগাই ছোট ছোট পাহাড় আর ঝোপ-জঙ্গলপূর্ণ মাঠে চড়ে বেড়াতে ভালবাসে। ঘন বন এড়িয়ে চলে। ফলে সাফারি পার্ক তাদের জন্য আদর্শ স্থান।


একাত্তর/টিএ 

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন