ঢাকা ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ৯ আশ্বিন ১৪২৯

ডলারের দাম লাগামহীন, ব্যাংকেও মজুদ কমছে

কাবেরী মৈত্রেয়, একাত্তর
প্রকাশ: ১৮ এপ্রিল ২০২২ ১৯:১৬:৫০ আপডেট: ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১০:৪৭:৫৬
ডলারের দাম লাগামহীন, ব্যাংকেও মজুদ কমছে

ব্যাংক কিংবা খোলা বাজার, সবখানেই ডলারের সঙ্কট। যা পাওয়া যাচ্ছে বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আমদানি ব্যয়, রপ্তানি আয়ের তুলনায় বেড়েছে। কমেছে প্রবাসী আয়ও।

তাই ডলারের দাম ধরে রাখা যাচ্ছে না। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিষয়টি উদ্বেগজনক। অর্থ পাচার বাড়ছে কি না তা খতিয়ে দেখতে কঠোর গোয়েন্দা নজরদারি প্রয়োজন।

ডলারের দাম বাড়তে থাকায় পরিস্থিতিতে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাবার আশঙ্কা করা হচ্ছে। যদিও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দাবি, সতর্কতার পাশাপাশি ডলার সরবরাহ বাড়াতে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

গেল আগস্টেই আন্ত:ব্যাংক লেনদেনে ডলার বিক্রি হতো গড়ে ৮৫ টাকায়। সাত মাসের ব্যবধানে এসে ঠেকেছে সাড়ে ৮৬ টাকায়। এই ডলারই খোলা বাজারেই বিক্রি হচ্ছে ৯২ টাকা পর্যন্ত।

কেন বাড়লো ডলারের দাম? কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, অর্থ বছরের আট মাসে দেশে পণ্য আমদানি খরচ বেড়েছে ৪৭ শতাংশ আর রফতানি আয় সেভাবে বাড়েনি।

সেই সঙ্গে বাড়েনি প্রবাসী আয়ও। বিপরীতে ঋণপত্র বা এলসির চাহিদা অনেক বেড়েছে। দেশে প্রচুর পণ্য আমদানি হচ্ছে। এ কারণে ডলারের ওপর চাপও বাড়ছে।

অবস্থা এমনই যে, অর্থবছরের শুরুর দিকেও বাড়তি ডলারের মজুদ ছিলো যেসব ব্যাংকে তা এখন নেমে এসেছে তিন ভাগের এক ভাগে। তাদেরও ধর্ণা দিতে হচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে।

বিশ্লেষকদের মতে, বৈদেশিক মুদ্রার চড়া দাম পণ্য আমদানির খরচ বাড়াচ্ছে তা সার্বিকভাবে আবারো জীবনযাত্রার খরচর বাড়িয়ে সংকটে ফেলবে সাধারণ মানুষকে। 

আরও পড়ুন: চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিলাবৃষ্টিতে আমের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা

এদিকে, পরিস্থিতি সামাল দিতে বিলাসদ্রব্য আমদানিতে লাগামটানাসহ একাধিক উদ্যোগ নিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ডলারের মজুদ বাড়াতে নানা উদ্যোগও অব্যহত আছে।

প্রয়োজনে বাজারে বৈদেশিক মুদ্রার সরবরাহ আরও বাড়ানো হবে বলেও আশ্বাস দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এছাড়া ঈদ উপলক্ষে রেমিট্যান্স বাড়বে। এতে পরিস্থিতিন লাগাম টানা যাবে। 


একাত্তর/আরবিএস  

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছাদ খোলা অভিবাদন!

ছাদ খোলা অভিবাদন!

৩ দিন ২ ঘন্টা আগে