ঢাকা ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৬ আশ্বিন ১৪২৯

শিক্ষকের পিটুনি: বাড়ি ফিরলো এক ছাত্রী, অন্যজন পর্যবেক্ষণে

নিজস্ব সংবাদদাতা (রূপগঞ্জ) নারায়ণগঞ্জ
প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০২২ ১৬:১৩:২১ আপডেট: ০৪ জুলাই ২০২২ ১৭:০৬:৩৫
শিক্ষকের পিটুনি: বাড়ি ফিরলো এক ছাত্রী, অন্যজন পর্যবেক্ষণে

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে শিক্ষকের পিটুনিতে গুরুতর আহত দুই শিক্ষার্থীর একজনের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় হাসপাতাল থেকে বাড়ি আনা হয়েছে। অন্যজনকে এখনও পর্যবেক্ষণে রেখেছেন চিকিৎসকরা।

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে তানজীলা নামের ওই শিক্ষার্থীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হয়। পরে স্বজনরা তাকে বাড়ি নিয়ে আসে।

এদিকে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএফএম সায়েদ জানিয়েছেন, শিক্ষার্থীদের ওপর এমন নির্যাতনে তারাব পৌরসভার বরপা হাজী নুরউদ্দিন আহমেদ উচ্চ বিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে এক ছাত্রীর মায়ের দেওয়া লিখিত অভিযোগ নিয়মিত মামলা হিসেবে রুজু হয়েছে।

জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে ঈদের ছুটির আনন্দে সহপাঠীদের সঙ্গে চুমকি দিয়ে আনন্দ উল্লাস করতে গেলে স্কুলের বাংলা বিষয়ের শিক্ষক জসীমউদ্দীন ক্ষিপ্ত হন। এ সময় তিনি ১৬ জন শিক্ষার্থীকে লাঠি দিয়ে মারধর করেন। এদের মধ্যে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী তানজীলা ও নিশির অবস্থা অশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের ইউএস বাংলা হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়। 


পরে ছাত্রীদের অবস্থার উন্নতি হওয়ায় আইসিইউ থেকে ওই দিন সন্ধ্যায় সাধারণ বেডে স্থানান্তর করা হয়। পর দিন সোমবার দুপুরে তানজীলার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হয়। 

অপরদিকে শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক না হওয়ায় নিশি আক্তারকে ভর্তি রেখে পর্যবেক্ষণ করছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।  

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক জওহর লাল জানিয়েছেন, এ ঘটনায় রোববার ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। পরে তদন্ত কমিটি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

আরও পড়ুন: ঘুষের ২৩ লাখ টাকাসহ গ্রেপ্তার সার্ভেয়ার পাঁচ দিনের রিমান্ডে

অনুসন্ধানে জানা যায়, শিক্ষক জসিম উদ্দিন বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে মার্চ মাসে একই স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় ২০১৮ সালে জেল থেকে জামিনে বের হয়ে আবারও শিক্ষকতা শুরু  করেন জসীম উদ্দিন। 

স্থানীয়দের অভিযোগ, সরকারি দলের গুরুত্বপূর্ণ পদ বহন করায় তার বিরুদ্ধে এমন স্পর্শকাতর অভিযোগ থাকার পরও তিনি ওই স্কুলে শিক্ষকতা করে আসছিলেন। 

তবে এবার তার বিরুদ্ধে সোচ্চার উপজেলার সংশ্লিষ্ট সব দপ্তর। 


একাত্তর/এসি

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছাদ খোলা অভিবাদন!

ছাদ খোলা অভিবাদন!

৯ দিন ২০ ঘন্টা আগে