ঢাকা ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৬ আশ্বিন ১৪২৯

উপাচার্যের বাসভবনে বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরিয়ে দিলেন শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিলেট
প্রকাশ: ২৫ জানুয়ারী ২০২২ ১০:০৬:০৫ আপডেট: ২৫ জানুয়ারী ২০২২ ১২:১২:১০
উপাচার্যের বাসভবনে বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরিয়ে দিলেন শিক্ষার্থীরা

প্রায় ২৯ ঘণ্টা পর উপাচার্যের বাসভবনে বিদ্যুৎ সংযোগ সচল করে দিয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিনের বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ সচল করা  হয়। এর আগে রোববার রাত সাড়ে সাতটার দিকে বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের একজন জানান, উপাচার্যের বাসভবনের বিদ্যুতের লাইনের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০/৩৫ জন কর্মচারীর বাসার বিদ্যুৎ সংযোগ সংযুক্ত। যার ফলে উপাচার্য ভবনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় ওই কর্মচারীরাও বিদ্যুতহীন হয়ে পড়েছিলেন। 

তিনি বলেন, বাসায় রোগীরা সমস্যায় পড়েছেন জানিয়ে কর্মচারীরা আমাদের কাছে বিদ্যুৎ সংযোগ সচল করে দেওয়ার অনুরোধ করেন। তাদের অনুরোধে আজ রাতে বিদ্যুৎ সংযোগ সচল করে দিয়েছি।

গত কয়েকদিন ধরে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলন চলছে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে। আন্দোলনের অংশ হিসেবেই উপাচার্যের বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। 

উপাচার্যের বাসভবনে সোমবার শিক্ষকরা খাবার নিয়ে প্রবেশ করতে গিয়ে বাধার মুখে পড়েন। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, প্রয়োজনে তারাই খাবার সরবরাহ করবেন।

আরও পড়ুন: শাবিপ্রবি ভিসির জন্য খাবার নিয়ে প্রবেশে শিক্ষার্থীদের বাধা

শা‌বিপ্রবির শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সূত্রপাত ১৩ জানুয়ারি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ তুলে ১৩ জানুয়ারি রাতে আন্দোলনে নামেন ওই হলের শিক্ষার্থীরা।

এসময় প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগ, হলের অব্যবস্থাপনা দূর করে সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করা এবং দ্রুত ছাত্রীবান্ধব ও দায়িত্বশীল প্রভোস্ট নিয়োগ দেওয়ার তিন দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামে তারা।

পরে রোববার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করলে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। এরপর ওইদিন বিকালে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েনের প্রতিবাদ করলে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ধাওয়া দেয় পুলিশ।

ধাওয়া-পাল্টার এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিপেটা করে, কাঁদানে গ্যাস, রাবার বুলেট ও সাউন্ড গ্রেনেড ছুড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তাসহ অন্তত অর্ধশত আহত হন।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দিলেও তা উপেক্ষা করে উল্টো উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনের এক পর্যায়ে আর শিক্ষার্থীরা উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে অনশন শুরু করেন। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) অনশনের ষষ্ঠদিন চললেও সংকট নিরসনে কোনো উদ্যোগ নেই শাবিপ্রবি কর্তৃপক্ষের।


একাত্তর/টিএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছাদ খোলা অভিবাদন!

ছাদ খোলা অভিবাদন!

১০ দিন ২ ঘন্টা আগে