ঢাকা ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯

বিনম্র শ্রদ্ধায় সারাদেশে জাতীয় শোক দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিনিধি, একাত্তর
প্রকাশ: ১৫ আগষ্ট ২০২২ ১২:১৩:০২ আপডেট: ১৫ আগষ্ট ২০২২ ১৬:০৪:০১

আজ ১৫ আগস্ট, বাঙালি জাতির শোকের দিন। ১৯৭৫ সালের এদিনে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাসভবনে ঘাতকদের হাতে রচিত হয় বিশ্ব রাজনীতির ইতিহাসে নির্মমতম ঘটনা। এ দিনে সপরিবারে হত্যা করা হয় বাঙালি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। 

৩২ নম্বর বাড়িতেই সেই রাতে বঙ্গবন্ধুর সাথে প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল, পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, ভাই শেখ নাসের ও কর্নেল জামিল। 

ঘাতকদের বুলেটে আরও প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর ভাগনে মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, শিশু বাবু, আরিফ খান রিন্টুসহ আরও অনেকে। দেশে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার ছোট বোন শেখ রেহানা।

প্রতি বছরই এই শোকের দিনে বিনম্র শ্রদ্ধার সাথে ১৫ আগস্টের শহীদদের স্মরণ করে পিতা হারানো এই হতভাগ্য জাতি। সারাদেশে দিনভর চলে শোকের মাতাম। 

এরই অংশ হিসেবে, ফরিদপুরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এমপির পক্ষে নগরকান্দায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্প স্তবক অর্পণ করেছেন তার রাজনৈতিক প্রতিনিধি শাহদাব আকবর চৌধুরী লাবু।

এ সময় জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে একটি শোক র‍্যালি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

No description available.

রাজবাড়ীতেও যথাযোগ্য মর্যাদায় হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, মহান মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক, বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে সোমবার সকাল ৯ টায় রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে নির্মিত জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুল হাকীম এমপি, রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী, রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান, পুলিশ সুপার এমএম শাকিলুজ্জামান । এরপর পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন  সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন পুষ্পমাল্য অর্পন করে।

এর আগে সকালে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে জাতীয় পতাকা, দলীয় পতাকা, কালো পতাকা উত্তোলন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, আলোচনা সভা ও দোয়ার মাহফিলের আয়োজন করেন আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সিলেটে জেলা প্রশাসক এর কার্যালয়ের সামনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন এর মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল থেকে প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠনসহ সর্বসাধারণের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এসময় বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সবাইকে দেশে এনে রায় কার্যকর করার দাবী জানান সাধারণ মানুষ। 

No description available.

রাঙ্গামাটিতে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষ গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে জাতীয় শোক দিবস পালন করছে।

দিবসটি উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহন করেছে।  

সকালে রাঙ্গামাটি বঙ্গবন্ধু মুর‍্যালে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান,  রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুইপ্রু চৌধুরী, রাঙ্গামাটি পুলিশ সুপার মীর মোদদাছছের হোসেন, সাবেক মহিলা সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙ্গামাটি জেলা সিভিল সার্জন অফিস,  রাঙ্গামাটি মেডিকেল কলেজ সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি কর্মকর্তা ও সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্বরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

মেহেরপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪৭তম শাহাদৎ বার্ষিকী

দিবসটি উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৯ টার সময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সামনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক ডঃ মুনছুর আলম খান। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহীনির পক্ষ থেকে প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন পুলিশ সুপার রাফিউল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম. এ খালেক, সহসভাপতি আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ্বাস, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. ইব্রাহীম শাহীনসহ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। এরপর একে একে আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, স্কুল কলেজ, সাংস্কৃতিক সংগঠন সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। এছাড়া দিবসটি ঘিরে দিনব্যাপী স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আলেচনা সভা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দোয়া মোনাজাতের আয়োজন করা হয়েছে।    

খুলনায় বঙ্গবন্ধুর ৪৭ তম শাহাদত বার্ষকীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে জাতির জনকের ম্যুরালে পুষ্পমাল্য অপর্ণ করে শ্রদ্ধা জানিয়েছে হাজারো মানুষ। খুলনা আওয়মী লীগ সহ বিভিন্ন সংগঠন করেছে শোকসভা। খুলনার মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন ,  বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড ছিলেন খুনী জিয়া, তিনিই  খুনিদের বিভিন্ন দেশে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আর মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের বুলি আওরানো  কিছু দেশের সরকারের কারণে এখনো বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের রায় কার্যকর করা যায়নি। 

ওইসব দেশের নাগরিকদের প্রতি তিনি আহবান জানান, খুনীদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে দেবার জন্য সরকারের প্রতি চাপ সৃষ্টি করতে। একটি জাতির পিতাকে যারা হত্যা করে আর সেই হত্যাকারীকে কোন সভ্য দেশ দিনের পর দিন আশ্রয় দিয়ে রাখলে তাদের দেশেরই বদনাম হবে।

নরসিংদীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭ তম  শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হচ্ছে। সকালে নরসিংদী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে জয়বাংলা চত্তরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক আবু নইম মোহাম্মদ মারুখ খান, পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম, সিভিল সার্জন ডা: নুরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

এছাড়া জেলার সকল উপজেলা ও পৌরসভায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলের শুভেচ্ছা জানান সংশ্লিষ্ট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, নির্বাহী কর্মকর্তাসহ হাজারো জনতা। তাছাড়া দিনব্যাপী বিভিন্ন স্কুল-কলেজসহ সকল সরকারী বে-সরকারী প্রতিষ্ঠানে নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে পালিত হবে দিবসটি।

ময়মনসিংহের সার্কিট হাউজ মাঠ সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু মু্রালে শোক দিবসে প্রথম ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি। এরপর বঙ্গবন্ধুর প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেন ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনার শফিকুর রেজা বিশ্বাস, ডিআইজি ময়মনসিংহ রেন্স দেবদাস ভট্টাচার্য, ময়মনসিংহ সিটি মেয়র, জেলা পরিষদ প্রশাসক, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, আওয়ামী লীগ, স্থানীয় প্রশাসনের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা সহ পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

গাজীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষে সকালে জেলা প্রসাশক কার্যালয় প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। প্রথমেই পুস্পস্তবক অর্পণ করে করা হয় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। এরপর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, পুলিশ বিভাগ, প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তর ও রাজনৈতিক- সামাজিক- সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের মানুষ অর্পণ করেন।

নেত্রকোণাতেও সারাদেশে ন্যায় নানান কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৭ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। জেলার দশ উপজেলায়  বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান প্রশাসন, আওয়ামীলীগসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এছাড়াও শোক র‍্যালী,আলোচনা সভা,চিত্রা অংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

সোমবার সকাল ৯ টায়  নেত্রকোণা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় প্রাঙ্গণে চেতনা বাতি ঘরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু এমপি।  এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলাপরিষদ চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের হত্যার সাথে  জড়িত পলাতক খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসীর রায় কার্যকরের দাবী জানান শ্রদ্ধা জানাতে আসা আওয়ামীলীগ নেতাসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।