ঢাকা ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

বাংলাদেশকে ছয় হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে জাইকা

কাবেরী মৈত্রেয়, একাত্তর
প্রকাশ: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২১:৫৭:২৮
বাংলাদেশকে ছয় হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে জাইকা

বাজেট সহায়তা হিসাবে বাংলাদেশকে ছয় হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে জাইকা। তবে প্রাথমিকভাবে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হলেও এখনও তা চূড়ান্ত রূপ নেয়নি বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাইকার নতুন আবাসিক প্রতিনিধি ও বিদায়ী প্রতিনিধি দেখা করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নানের সঙ্গে। এ সময় বিনিয়োগ ও চলমান প্রকল্প নিয়ে আলোচনা হয়।

জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি- জাইকার অর্থায়নে ৩৩টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার। এসব প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৭২ হাজার ১৮৫ কোটি টাকা।

এর মধ্যে জাইকা থেকে পাওয়া যাবে দুই লাখ এক হাজার ৭৯৬ কোটি টাকা। এই হিসাবে প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয়ের ৭৪ শতাংশের বেশি ঋণ দিচ্ছে জাইকা।

অবকাঠামোসহ অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পগুলোতে যখন অর্থ লগ্নির এই অবস্থা তখন করোনা পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারসহ যাবতীয় উন্নয়ন খরচ মেটাতে বাংলাদেশকে আবারো ৬০ কোটি ডলার বাজেট সহায়তা দিচ্ছে এই সংস্থা।

সোমবার পরিকল্পনামন্ত্রীর সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতে এমনটা জানান তারা। এম এ মান্নান বলেন, জাইকা ৬০ কোটি মার্কিন ডলার বাজেট সাপোর্ট দেবে। এটা আলোচনা পর্যায়ে আছে। এখনো চূড়ান্ত হয়নি। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আড়াইহাজারে জাপানি অর্থায়নে ইকোনোমিক জোন হচ্ছে- সেখানে কাজ করতে চায় জাইকা। এটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। প্রকল্পটি দ্রুত সময়ে একনেক সভায় উঠবে। মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুতে জাপান কাজ করছে।

এ সময় বাংলাদেশে নবনিযুক্ত জাইকার আবাসিক প্রতিনিধি ইচিগুচি তোমোহিদে জানান, রেল, সমুদ্রসহ অবকাঠামোখাতে মনোযোগ রয়েছে জাইকার। তিনি আরো বলেন, আমি নতুন করে বাংলাদেশে কাজ করতে আসিনি। ১০ বছর আগে থেকেই কাজ করছি। এদেশের নানা মেগা প্রকল্পে আমি কাজ করেছি। আমার বয়স আর বাংলাদেশের বয়স একই।

তোমোহিদো বলেন, জাপান ডেস্কে বসেই অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে অবদান রেখেছি। যেমন মেট্রোরেল, মেঘনা-গোমতি-কাঁচপুর সেতু, মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র ইত্যাদি। সুতরাং আমার কিছু পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করার।

আরও পড়ুন: সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় চুরির মামলা, তিন পুলিশ ক্লোজড

আর, জাইকার বিদায়ী আবাসিক প্রতিনিধি ইয়ো হায়াকাওয়া বলেছেন, বাংলাদেশে দীর্ঘ তিন বছর কাজ করেছি। দেশটির নানা খাতে আমি নিবিড়ভাবে জড়িত। বাংলাদেশের অর্জন সত্যিই বিস্ময়কর। করোনা সংকট মোকাবিলাসহ নানা খাতে দেশটির অর্জন বিস্ময়কর।

একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

Nagad Ads
ছাদ খোলা অভিবাদন!

ছাদ খোলা অভিবাদন!

২ মাস ৫ দিন আগে