ঢাকা ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

দত্ত হলো ‘কুত্তা’, সরকারি গাড়ির সামনে ‘ঘেউ ঘেউ’ করে প্রতিবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক, কলকাতা
প্রকাশ: ২০ নভেম্বর ২০২২ ১২:০৯:২৮ আপডেট: ২০ নভেম্বর ২০২২ ১২:১৩:২২
দত্ত হলো ‘কুত্তা’, সরকারি গাড়ির সামনে ‘ঘেউ ঘেউ’ করে প্রতিবাদ

বেশ সুন্দর পোশাকে ব্যাগ হাতে একগুচ্ছ কাগজ নিয়ে এক সরকারি কর্মকর্তার গাড়ির জানলার কাছে মুখ রেখে ঘেউ-ঘেউ করে যাচ্ছেন বছর ৪০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি! আর এই দৃশ্য দেখে ওই কর্মকর্তা পড়ছেন চরম বিড়ম্বনায়। তার চোখে-মুখেও এ ছাপ স্পষ্ট। কিন্তু কেনো এমন করছেন ওই ব্যক্তি?

আসলে এটাই তার প্রতিবাদের ভাষা। ওই ব্যক্তির নাম শ্রীকান্তি কুমার দত্ত। 

বাঁকুড়া-২ নম্বর ব্লকের বিকনা গ্রাম পঞ্চায়েতের কেশিয়াকোল গ্রামের বাসিন্দা শ্রীকান্তি দত্ত। রাজ্যের খাদ্য ও সরবরাহ দপ্তর থেকে দেয়া রেশন কার্ডের যে প্রতিলিপি তিনি পেয়েছেন সেই জায়গায় দত্ত (DUTTA) নয়, তার পদবী হয়ে গেছে ‘কুত্তা’ (KUTTA)। তাই এমন ভুলের প্রতিবাদে অভিনব পন্থা নিলেন শ্রীকান্তি।

জয়েন্ট বিডিও (ব্লক ডেভলপমেন্ট অফিসার) ক্যাম্প পরিদর্শনে এলে তিনি ঘেউ ঘেউ করে ‘প্রতিবাদ’ জানান।

শ্রীকান্তি জানান, প্রথম বার তিনি যখন রেশন কার্ড হাতে পান, সেখানে পদবী আসে মণ্ডল। পরে তিনি সেটি সংশোধনের আবেদন করলে পদবী ঠিক এলেও নাম আসে শ্রীকান্ত।

এরপর তিনি তৃতীয়বারের মতো নাম সংশোধনের আবেদন করেন। পরবর্তীতে চলতি মাসের ১১ তারিখ রেশন কার্ড ডাউনলোড করলে তিনি দেখতে পান তার নাম এসেছে ‘শ্রীকান্তি কুমার কুত্তা’। 

শ্রীকান্তি বাবু বলেন, এটা দেখার পর আমি মানসিকভাবে ভেঙে পড়ি। পরে সরকারি অফিসে গিয়ে জয়েন্ট বিডিওর গাড়ি দেখেই তার পিছনে ছুটে ঘেউ-ঘেউ করে প্রতিবাদ করি।

ওই ব্যক্তির অভিযোগ, তার কথার কোনো জবাব না দিয়ে জয়েন্ট বিডিও সেখান থেকে এক প্রকারে পালিয়ে যান। 

ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন, শ্রীকান্তি দত্তর মা হীরা দত্ত। তিনি বলেন, অশিক্ষিত চুক্তি ভিত্তিক লোকদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। তার কথায়, ‘ডি’ - এর জায়গায় ‘কে’ এসেছে, এটা তাদের ঠিক করে দেওয়া উচিত ছিলো।


ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমি আমার ছেলের একটা নাম দিয়েছি, আর তা ‘কুত্তা’ নয়। এটা খুবই অসম্মানজনক।

এই বিষয়ে এসডিও বলেন, ভুল হতে পারে, তবে সচেতন হয়ে কাজটা করলে ভুলের পরিমাণ কম হবে।

পাশাপাশি তিনি জানান, শ্রীকান্তি কুমার দত্তের বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।

আরও পড়ুন: এক দশকে চাঁদে মানববসতির আশা নাসার

প্রসঙ্গত, এর আগে অনেক বার আধার, প্যান বা রেশন কার্ডে নাম ভুলের ঘটনা ঘটেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে এ নিয়ে ঠাট্টা তামাশাও করতে দেখা যায় অনেককেই। কিন্তু এবারেও এই ঘটনা যেন সেই সবকিছুকে ছাপিয়ে গেলো। পাশাপাশি এমন নজিরবিহীন প্রতিবাদও হয়তো আগে কেউ দেখেননি!


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

Nagad Ads