ঢাকা ২৬ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

দুর্দান্ত জয়ে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ মিশন শুরু

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৫ নভেম্বর ২০২২ ০২:৫৬:২৬ আপডেট: ২৫ নভেম্বর ২০২২ ১০:০৬:২৫
দুর্দান্ত জয়ে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ মিশন শুরু

দুর্দান্ত রিচার্লিসনে ম্যাচজুড়ে আক্রমণাত্মক ফুটবলের দ্যুতি ছড়িয়ে সার্বিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপে উড়ন্ত সূচনা পেয়েছে ৫ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল।

বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) দিবাগত রাত ১টায়  লুসাইল স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হয়।

আগের দিন ফাঁস হওয়া দল থেকে একটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে ব্রাজিল। ফ্রেদের জায়গায় আসেন কাসেমিরো।

ম্যাচের শুরু থেকে সার্বিয়ার রক্ষণে হানা দেন নেইমাররা। চতুর্থ মিনিটে রাফিনিয়া সার্বিয়ার ডিফেন্ডার স্ত্রাহিনিয়া পাভলোভিচকে কাটিয়ে নিচু ক্রস নিয়েছিলেন। কিন্তু কাছের পোস্ট থেকে বল ক্লিয়ার করা হয়।


সপ্তম মিনিটে আক্রমণে ওঠে আসা নেইমারকে ঠেকাতে গিয়ে ফাউল করেন পাভলোভিচ। সঙ্গে সঙ্গে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি।

নবম মিনিটে কাসেমিরোর দারুণ পাসে বক্সের ভেতরে বল পেয়ে যান নেইমার। নিয়ন্ত্রণে নিলেও সার্বিয়ান ডিফেন্ডাররা ঘিরে ধরেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে। ফলে শট নিতে পারেননি তিনি।

১৩ মিনিটের মাথায় কর্নার কিকে বল গোলমুখে পাঠান নেইমার। কিন্তু সার্বিয়ার গোলরক্ষক ভানিয়া মিলিনকোভিচ-সাভিচ ফের কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান সেই শট। দ্বিতীয় কর্নার কিকে মাথা ছোঁয়াতে পারেননি মার্কিনিয়োস। বরং তার আগেই দুই হাতে বল ধরে ফেলেন সার্বিয়ার গোলরক্ষক।


২১তম মিনিটে কাসেমিরো দূরপাল্লার শট নিয়েছিলেন। কিন্তু সহজেই বল গ্লাভসবন্দি করেন সার্বিয়ান গোলরক্ষক।

অন্যদিকে প্রথম ২৫ মিনিটে বল দখলে টক্কর দিলেও মাত্র একবার ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক আলিসনকে সেভাবে পরীক্ষার মুখে ফেলতে পারে সার্বিয়া। অনেকটা দূর থেকে বক্সে ঢুকে পড়া মিত্রোভিচকে লক্ষ্য করে ক্রস দেন তাদিচ। কিন্তু ব্রাজিল গোলরক্ষক লাফিয়ে বল গ্লাভসবন্দি করেন।


২৮তম মিনিটে সত্যিকারের সুযোগ আসে ব্রাজিলের সামনে। সিলভার থ্রো বল বক্সে পেয়ে যায় ভিনিসিয়ুস। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড শট নেওয়ার আগেই ডাইভ দিয়ে তার পায়ের কাছ থেকে বল কেড়ে নেন সার্বিয়ার গোলরক্ষক।

পরের মিনিটেই বাঁ প্রান্তে ফ্রি-কিক পায় ব্রাজিল। তা থেকে বল পেয়ে বক্সের কাছে ঢুকে ক্রস পাঠান রিচার্লিশন। কিন্তু সার্বিয়ার রক্ষণের জটলায় সফল হতে পারেননি তিনি। বল উড়ে যায় গ্যালারিতে।


৩৫তম মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও দুর্বল শটে বল তার হাতেই তুলে দেন রাফিনিয়া। ৪১তম মিনিটে সবচেয়ে ভালো সুযোগটা নষ্ট করেন ভিনিসিয়ুস। কাসেমিরোর লং বল খুঁজে নেয় রিয়াল তারকাকে। কিন্তু সেখানে সার্বিয়ার ডিফেন্ডার মিলেনকোভিচ বল দখলে নেন। তবে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজের বুকেই মারেন তিনি। বল নেমে পাশেই দৌড়াতে থাকা ভিনিসিয়ুসের পায়ে পৌঁছে যায়। কিন্তু একদম কাছ থেকে তার নেওয়া শট পোস্টের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যায়। ফলে প্রথমার্ধ শেষ হয় গোলশূন্য ড্রয়ে।

দ্বিতীয়ার্ধে ৬২ মিনিটে রিচার্লিসন ভেঙে দেন সার্বিয়ার ডিফেন্স। আক্রমণটা তৈরি করেছিলেন নেইমার। তবে শট নেওয়ার জায়গা বের করার আগেই ফাঁকা পেয়ে দ্রুত শট নিয়ে নেন পাশে থাকা ভিনিসিয়ুস।

রিয়াল মাদ্রিদ তারকার প্রচেষ্টা সার্বিয়ান গোলরক্ষক মিলিনকোভিচ সাভিচ ফিরিয়ে দিলেও ফিরতি শটে বল জালে জড়ান রিচার্লিসন।


এর ১১ মিনিটে পর এই তারকা জোড়া গোল পূর্ণ করে দলকে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন। ভিনিসিয়ুসের ভাসিয়ে দেওয়া বলে বাইসাইকেল কিকে গোল করেন রিচার্লিশন। ৭৩ মিনিটে দুই গোলে এগিয়ে যায় ব্রাজিল।

ফর্ম ও স্কোয়াডের গভীরতার কারণে ব্রাজিলকে এবার শিরোপার সবচেয়ে বড় দাবিদার ভাবা হচ্ছে। ১৯৯৮ আসরের পর বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে কখনো হারেনি ব্রাজিল। এই পর্যায়ে টানা ১৬ ম্যাচে অপরাজিত তারা।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

Nagad Ads
ছাদ খোলা অভিবাদন!

ছাদ খোলা অভিবাদন!

২ মাস ৫ দিন আগে