ঢাকা ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯

ব্রাজিলের জন্য বড় দুঃসংবাদ, ছিটকে গেলেন নেইমার

একাত্তর অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ২৫ নভেম্বর ২০২২ ২১:৩৩:৪১ আপডেট: ২৫ নভেম্বর ২০২২ ২২:১৬:৫০
ব্রাজিলের জন্য বড় দুঃসংবাদ, ছিটকে গেলেন নেইমার

শঙ্কাই বাস্তবে রূপ নিলো। গোড়ালির চোটে কাতার বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে গেলেন তারকা ব্রাজিল ফরোয়ার্ড নেইমার।

তিনি খেলতে পারবেন না সুইজারল্যান্ড ও ক্যামেরুনের বিপক্ষে ব্রাজিলের সামনের দুটি ম্যাচে।

শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) বার্তা সংস্থা রয়টার্স দুঃসংবাদ দিয়েছে ব্রাজিলের ভক্ত-সমর্থকদের। দলটির চিকিৎসক রদ্রিগো লাসমারকে উদ্ধৃত করে তারা জানিয়েছে, চলমান আসরের প্রথম রাউন্ডে আর দেখা যাবে না নেইমারকে।

ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রে বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) সার্বিয়ার বিপক্ষের ম্যাচে গোড়ালিতে লিগামেন্টে আঘাত পেয়েছেন নেইমার ও দানিলো।

তাদের এমআরআইয়ে এ চিত্র ধরা পড়েছে।

রয়টার্সের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্রাজিল গ্রুপ ‘জি’ পর্বে পরবর্তী প্রতিদ্বন্দ্বী সুইজারল্যান্ড এবং ক্যামেরুন।

ব্রাজিল দলের ডাক্তার রদ্রিগো লাসমার বলেন, ‘তারা নিশ্চিতভাবে পরের ম্যাচটি মিস করবে এবং আমরা সতর্ক থাকবো। আমরা তাদের দ্রুত সুস্থ করার চেষ্টা করছি।

জানা যায়, নেইমার বেশ কয়েক বছর ধরে তার ডান পা এবং গোড়ালিতে সমস্যায় ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার আঘাতের পরেও মাঠ থেকে দেরিতে বের হওয়ায় ইনজুরির যন্ত্রণা দেয়া যায় নেইমারের চোখে-মুখে।

সার্বিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে অন্যতম ফেবারিট ব্রাজিল। তবে জয়ের মুহূর্তটা বেশিক্ষণ উদযাপনের সুযোগ পায়নি তারা। ম্যাচে গোড়ালিতে চোট পান নেইমার। নির্ধারিত সময়ের ১০ মিনিট বাকি থাকতেই তুলে নেয়া হয় তাকে।

২৪ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) খেলার ৮০ মিনিটে মাঠ ছাড়ার আগে নেইমার মোট ৯ বার ফাউলের শিকার হন। এবারের বিশ্বকাপে যা এখন পর্যন্ত কোনো ফুটবলারকে সর্বোচ্চ ফাউল করার রেকর্ড।

ম্যাচ শেষে যখন নেইমার সাইডবেঞ্চে বসে ছিলেন, তখনই তার চোখেমুখে স্পষ্ট হয়েছে ইনজুরির যন্ত্রণা। দল যখন জয় উদযাপনের অপেক্ষা করছিল, তখন ব্রাজিলের মেডিকেল টিম তার প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত ছিল।

ম্যাচ শেষে ব্রাজিল দলের ডাক্তার রদ্রিগো লেসমার নেইমারের ইনজুরি নিয়ে সে সময় বলেন, নেইমারের ডান পায়ের গোড়ালি মচকে গেছে। ওই অংশটি ফুলে গেছে। আমরা প্রাথমিকভাবে আইস ট্রিটমেন্ট দিয়েছি। এখন তার ফিজিক্যাল থেরাপি চলছে। ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা অপেক্ষার পরই জানা যাবে এ চোট কতটা মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে।

তবে নেইমারকে নিয়ে বরাবরই আশাবাদী ছিলেন ব্রাজিল কোচ তিতে। তিনি বলেন, দ্রুতই ফিরে আসবে নেইমার।

নিজের ইনস্টাগ্রামে নেইমার লেখেন, বিশ্বাস রাখো। বিশ্বাস করতে হবে, সবকিছুই ঠিক হয়ে যাবে, এমনকি চরম বিশৃঙ্খলার মাঝেও। এটা নিশ্চিত যে, সব ভালো কিছু এখনো আসার বাকি। এটা বুঝতে হবে, সবকিছুর তার নিজস্ব সময় আছে। বিশ্বাস মানুষের ক্ষমতার বাইরে। আমরা আসতে পারি না, কিন্তু অনুভব করতে পারি।

আরও পড়ুন: দুই হারে বিদায়ের দ্বারপ্রান্তে কাতার

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে নিজ দেশে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে পিঠের ইনজুরিতে পড়ে আসর থেকে ছিটকে গিয়েছিলেন নেইমার। তার অনুপস্থিতিতে সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে স্বপ্নভঙ্গ হয় সেলেসাওদের। এবার গোড়ালির ইনজুরি আবারো শঙ্কা জাগাচ্ছিল। সেই শঙ্কাই যেন দুঃসংবাদ হয়ে এলো। তবে সেলেসাও সমর্থকরা এখন প্রার্থনা করতে পারেন চোট যেন দীর্ঘায়িত না হয়।


একাত্তর/আরএ

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন

Nagad Ads