সেকশন

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১
 

২০২৩ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় সাড়ে ছয় হাজার মৃত্যু

আপডেট : ২৭ জানুয়ারি ২০২৪, ০১:১৫ পিএম

গত বছর সারাদেশে ৬ হাজার ৯১১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ হাজার ৫২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত আরো ১১ হাজার ৪০৭ জন। 

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের প্রকাশিত দুর্ঘটনা সংক্রান্ত বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।  সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করা সংগঠনটি নয়টি জাতীয় দৈনিক, সাতটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ইলেকট্রনিক গণমাধ্যম এবং নিজস্ব তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে। 

শনিবার সকালে প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত বছরের (২০২৩) সড়ক দুর্ঘটনায় সারা দেশে ১ হাজার ১২৮ শিশু নিহত হয়েছে; অর্থাৎ প্রতিদিন তিনটির বেশি শিশুর প্রাণ যাচ্ছে সড়কে।  দেশের আঞ্চলিক সড়কগুলোয় গত বছর সবচেয়ে বেশি শিশু মারা গেছে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া-আসার সময়, বসতবাড়ির আশপাশের সড়কে খেলাধুলার সময় নিহতের ঘটনা বেশি ঘটেছে। 

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের হিসাব অনুযায়ী, দেশে গত বছর সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৬ হাজার ৯১১টি। এতে ৬ হাজার ৫২৪ জন নিহত হয়, আহত হয় ১১ হাজার ৪০৭ জন। মোট নিহতের ১৭ শতাংশের বেশি শিশু। গত বছর দেশে দুর্ঘটনার সংখ্যা এর আগের (২০২২) বছরের চেয়ে বাড়লেও কমেছে মৃত্যুর সংখ্যা। দুর্ঘটনায় শিশুমৃত্যুর সংখ্যাও আগের বছরের তুলনায় সামান্য কমেছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, ৪০ শতাংশের বেশি শিশু মারা গেছে যাত্রী বা পণ্যবাহী বাস, ট্রাক ও প্রাইভেট কারের ধাক্কায়। এরপর আঞ্চলিক বা গ্রামীণ সড়কের যানবাহন, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও ইজিবাইকের ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু হয়েছে। প্রায় ১৬ শতাংশ শিশুর প্রাণ গেছে বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায়। স্থানীয়ভাবে তৈরি নছিমন, ভটভটি বা মাহিন্দ্র কেড়েছে প্রায় ৭ শতাংশ শিশুর প্রাণ।

রোড সেফটির বিশ্লেষণে দেখা যায়, গ্রামীণ সড়কে আগের বছরের (২০২২) চেয়ে গত বছরে শিশুমৃত্যু কমেছে। কিন্তু বেড়েছে আঞ্চলিক সড়কে। যেসব দুর্ঘটনার কবলে পড়ে শিশুদের মৃত্যু হয়, এর এক-তৃতীয়াংশের বেশি ঘটে দুপুরের দিকে। তবে সকাল ও বিকেলের দিকেও অনেক দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় নিহত শিশুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৪৩ শতাংশেরই বয়স ৬ থেকে ১২ বছরের মধ্যে। এরপরই আছে ১৩ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিশু। নিহত শিশুদের মধ্যে ৩৭ শতাংশ এই বয়সী।

এআর
সড়ক ও মহাসড়কে যানবাহনের গতিসীমা নির্ধারণ করায় সরকারকে সাধুবাদ জানিয়েছে রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশ। আর এই উদ্যোগে সড়কে দুর্ঘটনা কমবে বলেও আশা প্রকাশ করেছে তারা।
চলমান তাপদাহের কারণে সড়কের পিচ গলে যাবার পাশাপাশি দূরপাল্লার গাড়িতে নিম্নমানের চাকা ব্যবহারের কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে। পিচগলা সড়কে নিম্নমানের চাকা গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারছে না।
ঈদুল ফিতরের আগে ও পরে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতদের সংখ্যা প্রকাশ করেছে বিআরটিএ। দৈনিক গড়ে ১৭টি দুর্ঘটনায় ১৮ জন মারা গেছে। বিআরটিএর এই পরিসংখ্যান বলছে, ঈদের আগে ও পরে ১৭ দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে ৩২০...
গত ২০২৩ সালের ঈদুল ফিতরে ৩০৪টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩২৮ জন নিহত ও ৫৬৫ জন আহত হয়েছিল। বিগত বছরের সঙ্গে তুলনা করলে এবারের ঈদে সড়ক দুর্ঘটনা ৩১.২৫ শতাংশ, প্রাণহানি ২৪.০৮ শতাংশ, আহত ১৪৭.৪৩ শতাংশ বেড়েছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালের কাছে অ্যাম্বুলেন্স ও ইনজেকশন চেয়ে না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এ জেড এম জাহিদ হোসেন।
ঢাকাই সিনেমার সুপারস্টার শাকিব খানের প্রাণনাশের আশঙ্কা করছেন তার ভক্তরা। তাই এই প্রিয় তারকার নিরাপত্তার দাবি করেছেন তারা।
গাইবান্ধায় চলন্ত ট্রেন দেখে রেললাইনে ঝাঁপিয়ে পড়ে দুই হাত তুলে দাঁড়ান এক নারী। কিন্তু ট্রেনটির আকষ্মিক গতিরোধ করার কোনো উপায় না থাকায় তাকে ধাক্কা দিলে মাথা থেতলে এবং বাম পা কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই নিহত...
লোডিং...
Nagad Ads
সর্বশেষপঠিত

এলাকার খবর


© ২০২৪ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত