সেকশন

মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
 

দুর্যোগের ঝুঁকিতে রাঙ্গাবালীর আট চরের হাজারো মানুষ

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪১ পিএম

দুর্যোগ মৌসুমে চরম ঝুঁকিতে থাকে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার আটটি চরের হাজারও মানুষের জীবন। মূলভূখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন এসব চরে জনবসতি থাকলেও নেই কোন ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র। নেই কোন স্কুল। 

এছাড়া, বেড়িবাঁধ না থাকায় সামান্য জোয়ারের পানিতেই ভেসে যায় চাষের মাছসহ ক্ষেতের ফসল। চরবাসীর দাবি দুর্যোগে ঝুঁকি কমাতে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। 

রাঙ্গাবালী দেশের সবচেয়ে দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর ঘেঁষা একটি উপজেলা। উত্তরে চালিতাবুনিয়া ও আগুনমুখা নদী ও চর বিশ্বাস, পশ্চিমে রামনাবাদ চ্যানেল ও কলাপাড়া উপজেলা, পূর্বে চর ফ্যাশন উপজেলার চর কুররী-মুকরী এবং দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর।

সেই রাঙ্গবালীর আটটি চর উপজেলা থেকে বিচ্ছিন্ন। কোথাও নদী, কোথাও বা সাগর ঘেঁষে থাকলেও চরকাশেম, কলাগাছিয়া চর, চরকানকুনি, চরইমারশন, চরনজির, চরতোজাম্মেল, কাউখালী চর ও চরলতায় নেই কোন আশ্রয় কেন্দ্র। 

তাই, দুর্যোগকালীন সময়েও এখানে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাস করে মানুষ। প্রতি বছরই ছোট বড় ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়তে হয় চর এলাকার মানুষদের। 

এছাড়া চরগুলোর মধ্যে চরকাশেম, চরনজির ও কলাগাছিয়ার চরে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধও নেই ফলে সামান্য জোয়ারেই উঠে পানি। ভেসে যায় পুকুর ও ঘেরের মাছ, ফসলসহ সহায় সম্বল।

এদিকে চরের শিশুদের জন্য কোন স্কুল না থাকায় শিক্ষার আলো থেকেও বঞ্চিত তারা। 

চরগুলোতে জলবায়ু ও দুর্যোগ মোকাবেলায় কাজ করা সংস্থাগুলোর মতে, ঝুঁকি এড়াতে  শিগগিরই টেকসই বেড়িবাঁধ এবং আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ প্রয়োজন।

তবে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: হুমায়ুন কবির বলছেন, সরকারি বা নিবন্ধিত কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না থাকায় দীর্ঘদিন সেসব চরে নিয়মানুযায়ী আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ করতে পারেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।    

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই আটটি চরে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজার।


একাত্তর/এআর


পটুয়াখালীর বাউফলে তীব্র তাপদাহে এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার রাত ৯টার দিকে তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।
এ কান্না কোনো শোকের কান্না নয়। প্রচণ্ড গরম থেকে রক্ষা পেতে সৃষ্টিকর্তার কাছে এক পশলা বৃষ্টি প্রার্থনা করে কাঁদছেন এই মানুষগুলো। এ যেন উপায়ান্তহীন মানুষের সর্বশেষ প্রচেষ্টা।
তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন। তপ্ত রোদে পুড়ছে ফসলের মাঠ। হাঁসফাঁস অবস্থা প্রাণীকূলে। এ অবস্থায় পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে সালাতুল ইস্তিসকার বিশেষ নামাজ আদায় করা হয়েছে। 
পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় তাপদাহের কারণে ডায়রিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। শুধু এপ্রিলেই ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩১৬ জন। আর আউটডোরে চিকিৎসা নিয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। 
গরমের তীব্রতা বাড়ায় সারাদেশে বইছে তীব্র থেকে অতি তীব্র তাপদাহ। তাপমাত্রর পারদ উঠেছে ৪২ ডিগ্রির ঘরে। এমননি রাজধানীতেও সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস উঠেছে।
রাজধানীর ডেমরায় প্রাইভেট কারের ধাক্কায় মোঃ দুলাল উদ্দিন (৬০) নামের এক ভ্যান চালকের মৃত্যু হয়েছে। প্রাইভেটকারটি জব্দ করা হয়েছে, চালক পলিয়ে গেছে। 
পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদের অস্বাভাবিক সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা কমিটির অগ্রগতি প্রতিবেদন চেয়েছেন হাইকোর্ট। দুই মাসের মাসের মধ্যে কমিটিকে...
ভারতীয় তেলুগু ভাষার ক্রাইম অ্যাকশন থ্রিলার চলচ্চিত্র ‘পুষ্পা’ ছবির তুমুল জনপ্রিয়তার পর মুক্তি পেতে চলেছে ‘পুষ্পা: দ্য রুল’।
লোডিং...
Nagad Ads
সর্বশেষপঠিত

এলাকার খবর


© ২০২৪ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত