সেকশন

শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
 

বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর কমান্ডো বাহিনী কোনটি?

আপডেট : ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৫৭ পিএম

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে এখন পর্যন্ত যুদ্ধ ছাড়া পৃথিবী একটি দিন কাটিয়েছে কিনা, তা নিয়ে অনেকের মনেই সংশয় আছে। কারণ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হবার কয়েক বছরের মধ্যেই বিশ্বের বহু দেশ আবারও সংঘাতে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। সেই থেকে এখনো পৃথিবীর বহু দেশেই চলছে দ্বন্দ্ব সংঘাত যুদ্ধ।

জেনেভা একাডেমির এক হিসাব বলছে, এই মুহূর্তে বিশ্বের ১১৭টি দেশ বা অঞ্চলে সংঘাত চলছে। এর মধ্যে যেমন আছে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ, তেমনি আছে আঞ্চলিক ও আভ্যন্তরীণ সংঘাত ও যুদ্ধ। আর এক কারণে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশ নিজেদের সামরিক বাহিনীকে শক্তিশালী করছে, বাড়ছে সামরিক ব্যয়ও।

বিশ্বের সব দেশের সামরিক শক্তির হিসাবে রাখা প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের সবশেষ সমীক্ষা রিপোর্ট জানাচ্ছে, এই মুহূর্তে সবচেয়ে সেরা সামরিক শক্তির দেশ আমেরিকা ও রাশিয়া। এরপরে আছে চীন, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, ব্রিটেন, জাপান, তুরস্ক, পাকিস্তান এবং ইতালি।

এই দেশগুলোর প্রতিরক্ষা বাহিনীর আবার রয়েছে বিশেষ কমান্ড বাহিনী। এদের মধ্যে কোন বিশেষ বাহিনী সবচেয়ে দুর্ধর্ষ এবং ভয়ংকর তার রেটিংও সামনে এনেছে গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ার। বিভিন্ন দেশের বিশেষ বাহিনী বা কমান্ডো ফোর্সের সার্বিক দক্ষতা এবং সক্ষমতার বিচারে এই তালিকা তৈরি হয়েছে।

কমান্ড ফোর্সের নিরিখেও প্রথম দশে রয়েছে আমেরিকান সেনার একাধিক উইং। এর মধ্যে রয়েছে এস গ্রিন বেরেটস, ডেল্টা ফোর্স ও নেভি সিল। আলাদা আলাদ পদ্ধতিতে যুদ্ধ করে মার্কিন সেনার এই তিনটি কমান্ডো বাহিনী। পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে উপযুক্ত বিশেষ বাহিনীকে অভিযানে পাঠানো হয়।

মূলত গেরিলা যুদ্ধের জন্য গ্রিন বেরেটসকে তৈরি করেছে আমেরিকা। ১৯৭৭ সালে অক্টোবরে ডেল্টা ফোর্স প্রতিষ্ঠা করেন কর্নেল চার্লস বেকউইথ। লাতিনের বিভিন্ন জায়গায় এখনও মোতায়েন রয়েছে এই বাহিনী। অন্যদিকে আল কায়দার নেতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যার মিশনে পাঠানো হয়েছিলো নেভি সিলকে।

সামরিক শক্তির বিচারে বর্তমানে পঞ্চম স্থানে রয়েছে ব্রিটেন। তবে নৌযুদ্ধে ব্রিটেনের খ্যাতি অনেক দিনের।  ব্রিটিশ বাহিনীতে রয়েছে একাধিক নৌ কমান্ডো ফোর্স। যাদের মধ্যে এস রেঞ্জার্স ও সাস গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৭০ সালে জন্ম নেয়া ব্রিটিশ রেঞ্জার্সরা এখনও পর্যন্ত বহু বিপজ্জনক অপারেশনে সাফল্য পেয়েছেন।

গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের বিবেচনায় প্রথম দশে জায়গা পায়নি ইসরাইল। তবে তাঁদের কমান্ডো ফোর্স খুবই শক্তিশালী। বিদেশের মাটিতে ঢুকে প্রতিপক্ষকে নিমূর্লের পাশাপাশি বিদেশ থেকে জিম্মি উদ্ধারের ক্ষেত্রে ইসরাইলের শায়েতেত বাহিনীর জুড়ি মেলা ভার। যদিও গাজা উপত্যকায় ব্যর্থ হয়েছে বাহিনীটি।

বিশ্বের চতুর্থ শক্তিশালী ভারতের হাতে রয়েছে বেশ কয়েকটি কমান্ডো বাহিনী। মার্কোস, এনএসজি ও প্যারা এসএফ কমান্ডো ফোর্স তালিকায় উপরের দিকে স্থান পেয়েছে। এর মধ্যে নৌসেনার আওতায় আছে মার্কোস। বাকি দুটো নিয়ন্ত্রণ করে ভারতীয় সেনাবাহিনী। সবগুলো কমান্ডোর একাধিক মিশনে সফলতা রয়েছে।

তালিকায় জায়গা পেয়েছে পাকিস্তানের স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপ বা এসএসজি। এছাড়াও পোলান্ড, কানাডা ও রাশিয়ার কমান্ডো ফোর্সও এই তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে। তবে বিশ্বের তৃতীয় শক্তিশালী সেনাবাহিনী থাকা সত্ত্বেও তালিকায় নাম নেই কোনও চীনা কমান্ডো ফোর্সের।

পাশাপাশি জায়গা করতে পারেনি দুই কোরিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি বা জাপানের কমান্ডো বাহিনীও। এর মধ্যে ফ্রান্স ও উত্তর কোরিয়া পরমাণু শক্তিধর দেশ। তবে, নিজেদের কমান্ডো ফোর্স নিয়ে কঠোর গোপনীয়তা অবলম্বন করে চীন ও উত্তর কোরিয়া। তাই, এই দু’দেশের বিশেষ বাহিনী নিয়ে তথ্য খুব কমই থাকে। 

গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ার ছাড়াও, বিভিন্ন দেশের সামরিক শক্তির খোঁজ-খবর রাখা বেশ কিছু পোর্টালের হিসাবে যেসব দুর্ধর্ষ বিশেষ বাহিনীর শীর্ষ দলে আছে, সেগুলো হলো-

আমেরিকার নেভি সিল, রাশিয়ার আলফা গ্রুপ, ইতালির জিআইএস, ইসরাইলের শায়ারেত ম্যাটকাল, চীনের স্নো লিওপার্ড কমান্ডো ইউনিট, পোল্যান্ডের পোলিশ গ্রোম, কানাডার জয়েন্ট টাস্ক ফোর্স-টু, অস্ট্রিয়ার ইকেও কোবরা এবং স্পেনের স্পেশাল নেভাল ওয়ারফেয়ার ফোর্স।

 

 

এআর
গাজায় ছয় মাসের যুদ্ধে লাশের সারির নীচে চাপা পড়েছে লাখো মানুষের স্বপ্ন। তাদেরই একজন বাসমা আল-শাভিশ। যুদ্ধে বাবা, ভাই-বোনকে হারালেও দমে যাননি তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা বন্ধ হওয়ায়, বাধ্য হয়ে খাবার...
মধ্যপাচ্য থেকে দূর প্রাচ্য- সর্বত্রই এখন টানটান উত্তেজনা। ধুরু ধুরু বুকে চলছে আলোচনা; সত্যিই কি তা হলে সরাসরি যুদ্ধে জড়াচ্ছে ইরান-ইসরাইল।
যুদ্ধে রাশিয়ার সমকক্ষ হতে, ইউক্রেন তাদের পশ্চিমা মিত্রদের কাছে আমেরিকার তৈরি এফ-১৬ মাল্টি-রোল ফাইটার জেটের মতো আধুনিক যুদ্ধবিমান চেয়ে আসছে।
ঠিক দুই বছর আগে ২০২৪ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। গেল দুই বছরে রাশিয়ার বিরুদ্ধে টানা সম্মুখযুদ্ধে লড়ছে ইউক্রেন।
রহস্যজনক ও নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার তিনবারের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের পুরো মরদেহ পাওয়ার আশা নেই। তবে, দেহাবশেষ উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে সিআইডির টিম উদ্ধার ও স্থানীয় থানা পুলিশ।
হার দিয়ে শুরু হওয়ায় শঙ্কা ছিলো সিরিজ খোয়ানোর। সিরিজে টিকে থাকতে এই ম্যাচের জয়ের বিকল্প ছিলো না। তবে শঙ্কাই সত্যি হলো। সিরিজ হারলো বাংলাদেশ।
নব্বইয়ের দশকের অত্যন্ত জনপ্রিয় ও আলোচিত জুটি সঞ্জয় দত্ত ও মাধুরী দীক্ষিত। তাদের প্রেম পর্দা থেকে গড়িয়েছিল বাস্তব জীবনে। এর পর বিচ্ছেদ, বিতর্ক আর অভিযোগের পাহাড়ে যেন তারা চাপা পড়ে যান। বিচ্ছেদের পর...
জন্মস্থান মাশহাদে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। কয়েকদিনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বৃহস্পতিবার ইরানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় এই শহরে ইমাম আলী আল-রেজার...
লোডিং...
Nagad Ads
সর্বশেষপঠিত

এলাকার খবর


© ২০২৪ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত