সেকশন

শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১
 

রিমালের তাণ্ডবে বাগেরহাটে ৩০ হাজার পরিবার পানিবন্দি

আপডেট : ২৭ মে ২০২৪, ০৯:০০ পিএম

বাগেরহাটে ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডব ও জলোচ্ছ্বাসে জেলার বিভিন্ন এলাকায় নদী পাড়ের বাঁধ ভেঙে গেছে।

রোববার রাতে জোয়ারে বাঁধ ভেঙে এবং উপচে জোয়ারের পানি বিভিন্ন গ্রামে ঢুকে পড়ে। জেলা সদরের দড়াটানা নদীর বেমরতা এলাকায় ছয় মিটার, মোড়েলগঞ্জে পানগুছি নদীর শ্রেণীখালী এলাকায় ১০ মিটার ও দেবরাজ কুমারীজোলা এলাকায় ৪০০ মিটার বেড়িবাঁধ পানির তোড়ে ভেঙে যায়। এছাড়া শরণখোলায় একটি রিংবাঁধ ভেঙে গেছে। বাঁধ ভেঙে এবং বৃষ্টির পানিতে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ৩০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

ঝড়ের তাণ্ডবে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ৪৫ হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে ১০ হাজার সম্পূর্ণ এবং ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতি হয়েছে।

কয়েক হাজার গাছপালা ভেঙেছে ও উপড়ে পড়েছে। জেলায় বিদ্যুতের খুটি ভেঙে এবং গাছ পড়ে তার ছিঁড়ে প্রায় পাঁচ লাখ গ্রাহক রোববার রাত থেকে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন।

বাগেরহাট সদর, রামপাল, মোংলা, মোড়েলগঞ্জ এবং শরণখোলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ৩০ হাজার মমাছের পানিতে ডুবে গেছে। ভেসে গেছে চিংড়িসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। মৎস বিভাগের হিসাবে মাছ ভেসে এবং ঘেরের অবকাঠামোগতসহ প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এদিকে জেলার উপর দিয়ে এখনো ঝড়েবাতাস বয়ে যাচ্ছে এবং সেই সাথে বৃষ্টি ঝরছে। জলোচ্ছ্বাস এবং বৃষ্টিতে বাগেরহাটের নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক খালিদ হোসেন জানান, প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী জেলায় ১০ হাজার কাঁচাঘরবাড়ি সম্পূর্ণ এবং ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি আংশিক ক্ষতি হয়েছে। কয়েক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। জেলার ৭৫টি ইউনিয়নের পাঁচ লাখ মানুষ ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে আক্রান্ত হয়েছে।

আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা দুর্গত মানুষকে খাবারসহ প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। জেলার বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে ৭০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

বাগেরহাট পল্লীবিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার সুশান্ত রায় জানান, বিভিন্ন এলাকায় বেশকিছু বিদ্যুতের খুটি ভেঙে পড়েছে। গাছ পড়ে অসংখ্য স্থানে বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে গেছে। জেলায় তাদের চার লাখ ৮৫ হাজার গ্রাহক রোববার সন্ধ্যা থেকে বিদ্যুৎ বিছিন্ন রয়েছেন। বাগেরহাট শহরের ২০ হাজার গ্রাহকের মধ্যে এখনও অধিকাংশ এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে বলে ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউল হক জানান।

বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু রায়হান মোহাম্মদ আল-বিরুনী জানান, বাগেরহাট সদর ও মোড়েলগঞ্জ এলাকায় নদী পাড়ে তিনটি স্থানে তাদের বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে এবং বিভিন্ন এলাকায় বাঁধ উপচে জোয়ারের পানিতে গ্রাম প্লাবিত করে। এছাড়া শরণখোলায় রিংবাঁধ ভেঙে গ্রামে পানি ঢুকে পড়েছে।

কেএসএইচ
টাইমলাইন: ঘূর্ণিঝড় রিমাল
২৭ মে ২০২৪, ২১:০০
রিমালের তাণ্ডবে বাগেরহাটে ৩০ হাজার পরিবার পানিবন্দি
বৃষ্টি ও উজানের ঢলে দ্বিতীয় দফার বন্যায় সিলেটে পানিবন্দি সাড়ে নয় লাখ মানুষ। পানি না নামায় মানবেতর দিন কাটছে তাদের। চলমান বন্যা পরিস্থিতিতে সিলেট বিভাগের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ৮ জুলাই পর্যন্ত...
বৃষ্টি ও উজানের ঢলে দ্বিতীয় দফায় বন্যায় সিলেটে পানিবন্দি আট লাখেরও বেশি মানুষ। চারদিনেও বাসাবাড়ি থেকে পানি না নামায় মানবেতর দিন কাটছে তাদের। অনেকে আশ্রয় নিয়েছেন বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে। পানিবন্দিদের...
বাগেরহাট জেলায় আলাদা স্থা‌নে বজ্রপাতে দুই কৃষক নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরও একজন। এছাড়াও বজ্রপা‌তে চার‌টি গরু এবং এক‌টি মহিষ মারা গেছে।  
ঘূর্ণিঝড় রিমালে পটুয়াখালীর গ্রামীণ জনপদে বেশিরভাগ সড়কই চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে নদীর তীরবর্তী এবং ইউনিয়ন কানেকটিং সড়কগুলোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। 
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইট পর্বে আরও একটি অগ্নিপরীক্ষার মুখোমুখি টাইগাররা। এই পর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আসরের অন্যতম ফেবারিট ভারত, যারা এখনও এ আসরে হারের স্বাদ নেয়নি। প্রথম...
রাজধানীর পল্টনের রূপায়ন তাজ টাওয়ারের একটি ভবন থেকে দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তারা ওই ভবনেরই একটি অফিসে পিয়নের চাকরি করতেন।
দুঃসময় যেন পিছু ছাড়ছে না পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে। চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রাথমিক পর্ব থেকে বিদায় নেয়ার পর বাবর আজমদের একের পর এক বিতর্ক আর সমালোচনা ঘিরে ধরেছে। সবশেষ পাকিস্তান দলের বিরুদ্ধে...
পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে সাতদিনের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। নিরাপত্তা উদ্বেগের কারণে পাঞ্জাব সরকার এ পদক্ষেপ নিয়েছে। শুক্রবার জিও নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 
লোডিং...
Nagad Ads
সর্বশেষপঠিত

এলাকার খবর


© ২০২৪ প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত